Templates by BIGtheme NET
Home / মুক্ত মত / এখন সময় নতুন ও সৃষ্টিশীল কিছু করে দেখাবার

এখন সময় নতুন ও সৃষ্টিশীল কিছু করে দেখাবার

শোয়েব রহমান:

অনেকেই হয়তো ভাবছেন মেহেরপুর আর কিইবা জেগে উঠবে বা কিভাবেইবা জেগে উঠবে ? অনেকেই হয়তো বলবেন এই ছোট্ট জেলা টা কে নিয়ে কিইবা এতো মাতামাতি ? আমি তাদের বলতে চাই , একটু ভেবে দেখবেন কি?

যে স্থানটি স্বাধীন বাংলাদেশের সর্বপ্রথম রাজধানী হিসেবে ইতিহাসের পাতায় স্থান করে নিয়েছে। যে জেলাটি দেশের সর্বপ্রথম জেলা হিসেবে খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করেছিলো । যে শহরটি একসময় দেশের সবচেয়ে শান্তিপূর্ণ শহর হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছিল।  সেই জেলাটি আজ বাংলাদেশের সবচেয়ে অবহেলিত। যেখানে বেকারত্বের অভিশাপ মাথায় নিয়ে হতাশাগ্রস্থ যুব সমাজ মাদকাসক্ত হয়ে হিংসা হানাহানির মাধ্যমে সমাজ কে এক অন্ধকার ভবিষ্যতের দিকে ঠেলে দিচ্ছে। আমরা কি পারিনা সমাজের অবক্ষয়-কে রুখে আমাদের এই স্বপ্নের মেহেরপুরের জন্য কিছু করে দেখাতে ??

হ্যাঁ একজন মেহেরপুরের সন্তান হিসেবে মেহেরপুরের রাজনীতিবিদ, সুশীল সমাজ তথা সমগ্র মেহেরপুরবাসী কে বলছি…

শুধু কথায় চিড়ে ভেজানোর দিন শেষ এখন সময় নতুন ও সৃষ্টিশীল কিছু করে দেখানোর , সকল হিংসা বিদ্বেষ ভেদাভেদ ভুলে দলমত নির্বিশেষে সমাজের সকল শ্রেণীর মানুষ একে পাশে দাঁড়িয়ে সমাজের উন্নয়েনে অগ্রগামী হয়ে সুন্দর একটি মেহেরপুর গড়ে তোলার।

* একবার ভেবে দেখেছেন কি ?? মেহেরপুর স্বাধীন বাংলাদেশের সর্বপ্রথম রাজধানী হওয়ার পরও এই জেলার শিক্ষার হার বাংলাদেশের মধ্যে সবচেয়ে কম এবং আমার মনে হয় বাংলাদেশের একমাত্র জেলা যে জেলায় কোন কলেজে মাস্টার্স কোর্স নাই। যে জেলার যুব সমাজ কলম ছেড়ে মাদক-কে আঁকড়ে ধরছে । আমরা কি পারিনা শিক্ষার মানউন্নয়নে একটু ভূমিকা রাখতে ?? এর জন্য আমাদের একটু সচেতনতা আর সমাজপতি দের একটু স্বদিচ্ছাই যথেষ্ট ।

* একবার ভেবে দেখেছেন কি ?? ভৌগলিক অবস্থান ও অনুন্নত যোগাযোগ ব্যাবস্থার কারনে এখানে গড়ে ওঠেনি কোন  শিল্প-কারখানা তথা সুযোগ সৃষ্টি হয়নি নতুন কোন কর্মসংস্থানের কিন্তু বারবার সরকারের উচ্চপর্যায়ের আশ্বাসের পরেও  বাস্তবায়িত হয়নি স্থল-বন্দর গড়ে ওঠেনি রেল-লাইন। অথচ এখানে স্থল-বন্দর বাস্তবায়ন হলে এই মেহেরপুর-ই হয়ে উঠত বাণিজ্যিক ভাবে বাংলাদেশের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ স্থান ।

* একবার ভেবে দেখেছেন কি ?? মেহেরপুরে বাংলাদেশের অন্যতম দৃষ্টিনন্দিত ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট  হাসপাতাল থাকার পরও এখানে চিকিৎসার মান সবচেয়ে খারাপ, যেখানে নেই পর্যাপ্ত চিকিৎসক নেই উন্নত কোন চিকিৎসা ব্যাবস্থা। একটু উন্নত চিকিৎসার জন্য আমাদের ছুটতে হয় পাশের কোন জেলায়। তারচেয়ও কষ্টের বিষয় হল বর্তমানে এখানে নেই রুগী বহনকারী পর্যাপ্ত কোন এ্যাম্বুলেন্স । অথচ এই ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট মেহেরপুর হাসপাতালকে একটি পুর্নাঙ্গ মেডিকেল কলেজ হিসেবে গড়ে তুলতে পারলে চিকিৎসা ও অর্থনোইতিক বিপ্লব ঘটানো সম্ভব।

* একবার ভেবে দেখেছেন কি?? বাংলাদেশের অন্যতম বৃহৎ কৃষি গবেষণা খামার-গুলোর মধ্যে তিনটার অবস্থান এই মেহেরপুরে (আমঝুপি,বারাদি,গাংনি) ।যার যেকোনটাই একটি পূর্ণাঙ্গ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় গঠনের জন্য যথেষ্ট । আর মেহেরপুরে একটা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় হলেমেহেরপুরে শিক্ষা অর্থনীতি এবং সমাজের বৈপ্লবিক উন্নতি সম্ভব ।

*একবার ভেবে দেখেছেন কি স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম রাজধানী মুজিবনগর, আমঝুপি নীলকুঠি, গাংনির ভাটপাড়া কুঠি বাড়ি সহ তৎকালীন নদীয়া জেলার অনেক ইতিহাসের কালের সাক্ষী আমাদের এই মেহেরপুর কিন্তু অত্যন্ত দুঃখের বিষয় এই ঐতিহাসিক স্থান এবং স্থাপনা  গুলোর নেই সঠিক কোন পরিচর্যা । অথচ এগুলোর সঠিক পরিচর্যাই পারে মেহেরপুর কে অন্যতম গুরত্তপূর্ন পর্যটন জেলা হিসেবে গড়ে তুলতে। যা মেহেরপুরের অর্থনৈতিক এবং সামাজিক বিপ্লব ঘটাতে সক্ষম।

পরিশেষে, আমাদের রাজনীতিবিদ, সুশীল সমাজ তথা সমাজপতি-দের কাছে আকুল আবেদন, মেহেরপুর আসলেই অপার সম্ভাবনাময় একটি জেলা দয়া করে আপনারা জেগে উঠুন। শুধু ক্ষমতার জন্য নয় এই সপ্নিল মেহেরপুর-কে নিয়ে মেহেরপুরের উন্নয়ন নিয়ে ভাবুন। এখন সত্যিয় সময় এসেছে নতুন কিছু করে দেখাবার ।

জাগো মেহেরপুর… কিসের অপেক্ষা তোমার…

জেগে ওঠো ভ্রাতৃত্ববোধে জেগে ওঠো মাদকমুক্ত সুন্দর ও স্বপ্নিল একটি মেহেরপুর গড়ার প্রত্যয়ে

চেতনার মশাল জ্বলছে জ্বলবে… জয় আমাদের হবেই যদি একই পথে থাকি।

জয় হোক তারুণ্যের জয় হোক মেহেরপুরের।   

 

লেখক: মুখপাত্র, জাগো মেহেরপুর আন্দোলন

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.