Templates by BIGtheme NET
Home / ইতিহাস ও ঐতিহ্য / ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস আজ

ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস আজ

received_1342963685730646মুজাহিদ মুন্না:

আজ ১৭ এপ্রিল ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস। বাংলাদেশের   স্বাধীনতা সংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসে অনন্য একদিন। মুক্তিযুদ্ধ সময়ে ১৯৭১ সালের এদিনে মেহেরপুরের বৈদ্যনাথতলায় এক আম্রকাননে স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম অস্থায়ী সরকার শপথ গ্রহন করে। পরে এই বৈদ্যনাথতলাকে মুজিবনগর হিসেবে নামকরণ করা হয়। অস্থায়ী সরকারের সফল নেতৃত্বে মাত্র ৯ মাসের যুদ্ধে ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর বাংলাদেশ বিজয় অর্জন করে। ইতিহাসের সাক্ষি হয়ে যায় মেহেরপুরের মুজিবনগর।

এর আগে ১০ এপ্রিল অনুষ্ঠিত অধিবেশনে সর্বসম্মতিক্রমে স্বাধীনতা যুদ্ধ পরিচালনা ও পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীকে বিতাড়িত করে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ঘোষিত ও নির্দেশিত পথে মুক্তিযুদ্ধের বিজয় অর্জনের জন্য অস্থায়ী সরকার গঠন করা হয়। অস্থায়ী এ সরকারের রাষ্ট্রপতি করা হয় বঙ্গবন্ধু মেখ মুজিবুর রহমানকে। অন্যতম ছিলেন বাংলাদেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদ। তারা শপথ গ্রহণ করেন ১৭ এপ্রিল। সেদিন মুজিবনগরে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে রাষ্ট্রতি, সৈয়দ নজরুল ইসলামকে উপ-রাষ্ট্রতি ও তাজউদ্দীন আহমদকে প্রধানমন্ত্রী করে গঠিত হয় বাংলাদেশের প্রথম সরকার। এ সময় বঙ্গবন্ধু পাকিস্তানের কারাগারে বন্দি ছিলেন। এ কারণে তার অনুপস্থিতিতে উপ-রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলামকে করা হয় অস্থায়ী রাষ্ট্রপতি করা হয়। সরকারে আরো ছিলেন অর্থমন্ত্রী এ মনছুর স্বরাষ্ট্র, ত্রাণ ও পূনর্বাসন মন্ত্রী হিসাবে এ কামরুজ্জামান, পররাষ্ট্র ও আইনমন্ত্রী হিসাবে খন্দকার মোশতাক আহামেদ শপথ গ্রহন করেন। এছাড়াও চিফ অফ আর্মি স্টাফ হন আবদুর রব ও এ সরকার গঠনের ফলে বিশ্ববাসী স্বাধীনতার জন্য সশস্ত্র সংগ্রামরত বাঙালিদের প্রতি সমর্থন ও সহযোগিতার হাত প্রসারিত করে। মুজিবনগর সরকার গঠন বাঙালির স্বাধীনতা সংগ্রামের ইতিহাসে এক অনন্য গৌরবগাথা ও সাফল্যের স্বাক্ষর ১৯৭০ সালের সাধারণ নির্বাচনে ১৬৯ সীটের মধ্যে ১৬৭টিতে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থীদের জয়যুক্ত করেছিল সাধারণ জনগণ। কিন্তু ক্ষমতা লোভী পাকিস্তানী শাসকরা নিয়মানুযায়ী ক্ষমতা হস্তান্তর না করায় বঙ্গবন্ধু স্বাধীনতার ডাক দিয়েছিলেন। ২৫ মার্চ, ১৯৭১ এর সেই কালো রাত্রিতে বঙ্গবন্ধু পাকিস্তানীদের হাতে গ্রেফতার হওয়ার কিছু আগে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষনা করেন। তখন বর্বর হানাদাররা নিরস্ত্র ঘুমন্ত মানুষের উপর অতর্কিতে গোলা বর্ষন করছিল । বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতা ঘোষনার পর আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব জনগণের পূর্ণ বিশ্বাস ও সমর্থন পেয়েছিল। তাঁদের ডাকে জনগণ গোপন আশ্রয় নিয়েছিল এবং দেশকে মুক্ত করার জন্য স্বাধীনতা যুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল।

১০ এপ্রিল ১৯৭১ এক ঘোষনার মাধ্যমে গণ-প্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার গঠিত হয়েছিল যা মুজিবনগর থেকে ইস্যু করা হয়েছিল । এখানে উল্লেখ্য এই ঘোষনা বাঙালী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পূর্বের ঘোষনাকে দৃড়ীকরন করে। বঙ্গবন্ধুর অনুপস্থিতিতে বাংলাদেশের প্রথম প্রবাসী সরকারের রাষ্ট্রপতি হয়েছিলেন সৈয়দ নজরুল ইসলাম এবং প্রধান মন্ত্রী হয়েছিলেন জনাব তাজউদ্দীন আহমেদ।

সে সময় পাকিস্তানী সামরিক বাহিনী মেহেরপুরকে করতলে নিলেও পৌঁছুতে পারেনি বৈদ্যনাথতলায়। তদানীন্তন মেহেরপুর মহাকুমার বাগোয়ান ইউনিয়নের নিভৃত পল্লী বৈদ্যনাথতলা। স্বাধীনতানতা যুদ্ধকালীন সমস্ত সময়টুকু এ জায়গাটি ছিল নির্বিঘ্ন। ইংরেজ শাসনামলে পশ্চিমবঙ্গের নদীয়া জেলার অন্তর্গত মেহেরপুর ছিল মহাকুমা শহর । সে সুবাদে কলকাতার সাথে এই বৈদ্যনাথতলার সরাসরি সড়ক যোগাযোগের ব্যাবস্থা ছিল। সরকার গঠনের পর মুজিবনগরকে অন্তর্বর্তীকলিন রাজধানী ঘোষনা করা হয়েছিল। পাশাপাশি স্বাধীনতা ফরমান জারি করে মুক্তিযুদ্ধ শুরু করা হয়েছিল। এই সময ও শপথ গ্রহণের স্থানকে চিরস্মরণীয় করে রাখতে বৈদ্যনাথতলা নাম পরিবর্তন করে নাম রাখা হয় মুজিবনগর। তখন থেকে ১৭ এপ্রিলকে বলা হয় মুজিবনগর দিবস। এবং সেই থেকেই এই দিনটি মুজিবনগর দিবস হিসাবে পালিত হয়ে আসছে। মুজিবনগর সরকার দেশকে ৬টি জোনাল কাউন্সিলে ভাগ করেছিল যা জনগনের সমস্যার দেখভাল করত। সে সময় মুজিবনগর হয়ে উঠেছিল বাংলাদেশের প্রেরণার উৎস এবং জাতির ভাবমূর্তি অক্ষন রাখতে যথাসম্ভব যাকিছু করার ছিল তাই করেছিল। মুজিবনগরে বাংলাদেশের প্রথম সরকার গঠন আমাদের মুক্তি সংগ্রামে এবং ইতিহাসে এক মাইল ফলক। যা বিশ্বকে সাহায্য করেছিল আমাদের মুক্তিয্দ্ধুকে সমর্থন করতে। পরবর্তীতে চুড়ান্তভাবে স্বীকৃত পেয়েছিল একটি নতুন ¯স্বাধীন রাষ্ট্র হিসাবে। মুজিবনগরে অস্থায়ীভাবে স্থাপিত হয়েছিল সেক্রেটারিয়েট যার ক্যাম্প অফিস স্থাপন করা হয়েছিল কলকাতার ৮ নং থিয়েটার রোডে।

 

জাতীয় শপথ দিবস ঘোষনার দাবি:

প্রতি বছর এই নির্ধারিত দিনে মুজিবনগর আম বাগানে কিছু উচ্চ পদস্থ নেতা ও রাজকর্মকর্তারা আসেন এবং সুখী সমৃদ্ধশালী বাংলাদেশ গড়ার শপথ নেন। কিন্তু মেহেরপুর বাসীর দাবি এই বিশেষ দিনটিকে কেন ”জাতীয় শপথ দিবস হিসাবে ঘোষনা করা হয় না? বর্তমান সরকার অনেক কাজ করছেন তার ভিতর যুদ্ধাপরাধীদের বিচার অন্যতম। অথচ যে দিনটির জন্য এত কিছু সে দিনটি আজো পেলনা রাষ্ট্রীয় মর্যাদা। অর্থাৎ জাতীয় শপথ দিবস হিসাবে স্বীকৃতি জোটেনি।

পরিশেষে বলা যায়, বাংলাদেশ পৃথিবীতে এবং বিশ্ব মানচিত্রে একটি গর্বিত ও সম্মানিত জাতি হিসাবে জায়গা করে নিয়েছে। কিন্তু ১৭ এপ্রিল আজো তার মর্যাদা পূর্ণ রাষ্ট্রীয় ¯^ীকৃতি পায়নি। মুক্তিযুদ্ধের প¶ের শক্তি বর্তমানে রাষ্ট্রীয় ¶মতায় আসীন। এই সরকারের কাছে জনগণের দাবী ১৭ এপ্রিলকে রাষ্ট্রীয় ভাবে ”জাতীয় শপথ দিবস” ঘোষনা করা হউক। যেহেতু ১৭ এপ্রিল এর ইতিহাস কোন দল বা গোষ্ঠির একার ইতিহাস নয় তাই যে দল জনগণের রায় নিয়ে ভোটে নির্বাচিত হয়ে সরকার গঠন করবে, তাঁরা ¶মতার মসনদে বসার পূর্বে এই মুজিবনগরে এসে শপথ নিতে হবে। আর বছরে অন্তত: ৪টি মন্ত্রী পরিষদের সভা মুজিবনগরে অনুষ্ঠানের ব্যবস্থা করার দাবি রাখে মেহেরপুর বাসী। তাহলে জনগণ ও আগামী প্রজন্ম বুঝবে ১৭ এপ্রিল কি আর মুজিবনগরই বা কি। তাছাড়া মুক্তিযোদ্ধা ও সাধারণ জনগণ বাংলাদেশ টেলিভিশনে জাতীয় সংবাদ প্রচারিত হওয়ার আগে জাতীয় স্মৃতি সৌধের পাশাপাশি মুজিবনগরে অবস্থিত স্মৃতি সৌধটিও দেখতে চায়। বাংলাদেশ সরকার প্রধান জননেত্রী শেখ হাসিনা মুজিবনগর দিবসকে ১৭ এপ্রিলকে জাতীয় শপথ দিবস হিসাবে ঘোষনা দেবেন এটাই জেলাবাসীর প্রত্যাশা।

 

এবারের কর্মসূচী:

১৭ এপ্রিল রবিবার ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালন উপলক্ষে বিভিন্ন কর্মসূচী গ্রহন করেছে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রনালয় ও মেহেরপুর জেলা প্রশাসন। সূর্যোদয়ের সাথে মুজিবনগর স্মৃতি সৌধ প্রাঙ্গনে জাতীয় পতাকা উত্তোলন, সকাল ৮টায় স্মৃতিসৌধে পুস্পস্তবক অর্পণ, গার্ড অব অনার প্রদান ও কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠান। সকাল ৯টায় আনসার ও ভিডিপির আয়োজনে হে তারুণা তুমি দাঁড়াও শীর্ষক উপস্থাপনা। সকাল সাড়ে ৯টায় মুজিবগর দিবস উপলক্ষে মুজিবগনগর আ¤্রকাননের শেখ হাসিনা মঞ্চে আলোচনা সভা। আলোচনা সভায় বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও জন প্রশাসন মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলামের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেবেন আওয়ামীলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ, ব্যারিষ্টার আমিরুল ইসলাম, প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানি বিষয়ক উপদেষ্টা তৌফিক ইলাহি চৌধুরী, যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী বীরেন শিকদার, কেন্দ্রীয় নেতা এস এম কামাল হোসেন প্রমুখ। অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করবেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের খুলনা বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল হক। বিকালে মুজিবনগর মুক্তিযুদ্ধ স্মৃতি কমেপ্লক্স প্রাঙ্গনে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হবে।

 

সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন

আগামীকাল ১৭ এপ্রিল মুজিবনগর দিবস। কেন্দ্রীয়ভাবে মেহেরপুরের মুজিবনগরে এই দিবসটি পালিত হবে। দিবসটি পালনে মুজিবনগর স্মৃতিসৌধ ধোয়া মোছার কাজ এখন শেষ পর্যায়ে। মুজিবনগর স্মৃতিসৌধের পাশে শেখ হাসিনা মঞ্চ সাজানো হয়েছে। সমাবেশে বিভিন্ন জেলা থেকে আওয়ামীলীগ নেতা কর্মী ও মুক্তিযোদ্ধারা সমবেত হবেন। তাদের নিরাপত্তা ও অন্যান্য সুবিধাদি প্রদানে জন¯^াস্থ্য, এলজিইডি, গণপূর্ত ও জেলা প্রশাসন সর্বাত্মক প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে।

ঘোষনা পত্রপাঠ

১৭ এপ্রিল ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবসে ঘোষনা পাঠ করেন দিনাজপুর থেকে নির্বাচিত জাতয়ি পরিষদের সদস্য ও আওয়ামীলীগ পার্লামেন্টারি পার্টির টিফ হুইফ অধ্যাপক ইউসুফ আলী।

 

যেভাবে ১৭ এপ্রিল:

অনেক জীবন এবং এক সাগর রক্তের বিনিময়ে বাংলাদেশ পেয়েছিল তার আসল বাস্তবতা। রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞগণ বাঙালী জাতির আন্দোলনের কারণ সম্পর্কে সেই ১৮৮৫ সাল থেকে শুরু করে ১৯৭০ সালের সাধারণ নির্বাচন পর্যন্ত অনেক ঘটনায় উল্লেখ করেছেন। বাংলাদেশীদের ¯^প্ন চূড়ান্তভাবে বাস্তবায়িত হয়েছিল ১৯৭১ সালে ১৭ এপ্রিল মুজিবনগর আম বাগানে । যেখানে বাংলাদেশের প্রথম সরকার শপথ নিয়েছিল। সেখানে সেই মহতী অনুষ্ঠান প্রত্য¶ করেছিলেন জাতীয় ও আন্তর্জাতিক, সাংবাদিক, পর্যবে¶ক এবং বিশিষ্ট বাজনীতিবিদগণ। ¯^াধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র নামে একটি রেডিও সেন্টার স্থাপন করে প্রথম সরকারের শপথ অনুষ্ঠান সারাদেশে স¤প্রচার করা হয়েছিল এবং মুজিবনগর সেদিন পেয়েছিল ঐতিহাসিক মর্যাদা।

মুসলিম এলাকায় মুসলিম রাষ্ট্র গঠন করা হবে এই শর্তের মাধ্যমে ১৯০৫ সালেই বপিত হয়েছিল বাংলাদেশের বীজ। যার অংকুরোদ্গম হয়েছিল ১৯৫২ সালে ভাষা আন্দোলনের মধ্য দিয়ে। তদানীন্তন পূর্ব পাকিস্তানে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল তথাকথিত মুসলিম মতবাদ। পাকিস্তানী শাসক গোষ্ঠি আমাদের শাসনের নামে শোষণ, নিপীড়ন, বঞ্চিত করেছিল সামাজিক ও অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে বিশাল অসমতা সৃষ্টি করে। ফলশ্রুতিতে তদানীন্তন পূর্ব পাকিস্তানের স্বাধীনতা নেতৃবৃন্দ এ কে ফজলুল হক, মাওলানা আব্দুল হক খান ভাষানী, সহরাওয়ার্দী এবং শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৫৪ সালে ১১ দফা দাবী দিয়েছিলেন। দাবীর মধ্যে অন্যতম দাবী ছিল বাংলা ভাষা, ভূমিহীনদের মধ্যে ভুমি বন্টন, শিক্ষা জাতীয়করণ, ২১ ফেব্রুয়ারি তে শহীদ দিবস পালন সভা অনুষ্ঠানের অনুমতি প্রভৃতি। বাঙালী জাতির এই নৈতিক সাহসীকতা দেখে তখনই ভয় পেয়েছিল পাাকস্তানী শাসক গোষ্ঠী।

 

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful