Templates by BIGtheme NET
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস আজ

ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস আজ

7মুজাহিদ মুন্না,১৭ এপ্রিল:
১৯৭১ সালে গঠিত বাংলাদেশের প্রথম সরকার মেহেরপুরের মুজিবনগরে শপথ গ্রহণ করেছিল। সেই সরকার এই মুজিবনগর থেকে পরিচালিত যুদ্ধে মাত্র ৯ মাসে দেশ স্বাধীন হয়।
স্বাধীনতার পর প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান ১৯৭৩ সালের ৩১ আগষ্ট বৈদ্যনাথতলার আমবাগানটিকে সংরক্ষণসহ ঐতিহাসিক পবিত্রতম স্থানে রুপান্তরিত করার লিখিত নির্দেশ দেন। ১৯৮৮ সালে ১ কোটি ৯৩ লাখ ১১ হাজার ১৩৩ টাকা ব্যয়ে স্মৃতিসৌধ নির্মানের কাজ শেষ হয়। আওয়ামীলীগ সরকার ক্ষমতায় এসে ১৯৯৭ সালে ৬৬ একর জমির ওপর ১১ টি মন্ত্রনালয়ের বিভিন্ন দফতর ও অধিদপ্তর মুজিবনগর কমপ্লেক্স স্থাপনের কাজ শুরু করে। যেখানে নির্মাণ করা হয়েছে ১১টি সেক্টর ভিত্তিক মুক্তিযুদ্ধে বাংলাদেশ মানচিত্র।

মুজিবনগর কমপ্লেক্সে যা আছে:
প্রায় ৬৬ একর জায়গার ওপর গড়ে উঠেছে মুজিবনগর কমপ্লেক্স। এই কমপ্লেক্সে আছে পর্যটক মোটেল, শপিংমল, শিশুপরিবার, ডাকঘর, হেলিপ্যাড, টেলিফোন এক্সচেঞ্জ, ছয়দফার ভিত্তিক মনোরম গোলাপ বাগান, অত্যাধুনিক মসজিদ, মুক্তিযুদ্ধভিত্তিক বাংলাদেশের মানচিত্র ও জাদুঘর। এখন পর্যন্ত এসব কোন স্থাপনাই আনুষ্ঠানিকভাবে চালু হয়নি। অথচ প্রকল্পের প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয় কাজ শেষ হয়েছে অন্তত ৭ বছর আগে। বর্তমানে সাড়ে আট কোটি টাকা ব্যয়ে বড় মিলনায়তন নির্মানের কাজ চলছে।

মানচিত্র ও জাদুঘরে যা আছে:
মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক বাংলাদেশের স্মৃতি মানচিত্রে মুক্তিযুদ্ধের ১১টি সেক্টরের চিত্র মূর্ত হয়ে উঠেছে। সেখানে ভাস্কর্যের মাধ্যমে তুলে ধরা হয়েছে মুক্তিযুদ্ধের সময় বেনাপোল, বনগাও, বিরল,নেত্রকোনাসহ দেশের বিভন্ন সীমান্ত দিয়ে ভারতের উদ্দেশ্যে শরনাথর্েিদর স্রোতের দৃশ্য। হার্ডিঞ্জ ব্রিজ ধ্বংস, আ স ম আব্দুর রবের পতাকা উত্তোলন, শাজাহান সিরাজের ইশতেহার পাঠের দৃশ্য উঠে এসছে শিল্পীর হাতের ছোয়ায়। শালদাহ নদীতে যুদ্ধ, কাদেরিয়া বাহিনীর জাহাজ দখল ও যুদ্ধ, শুভপুর ব্রিজে সম্মুখ যুদ্ধ, কামালপুর ও কুষ্টিয়ার মিরপুরের যুদ্ধ, চালনা ও চট্রগ্রাম বন্দর ধ্বংস, পাহাড়তলী ও রাজশাহীর হত্যাযজ্ঞ, জাতীয় শহীদ মিনার ধ্বংস, সচিবালয়ে আক্রমন,রাজারবাগ পুলিশ লাইনে আক্রমন,জাতীয় প্রেসক্লাব ধ্বংস, তৎকালীন ইপিয়ার পিলখানা আক্রমণ,রায়েরবাজার বধ্যভূমি ও বুদ্ধিজীবী হত্যার চিত্র তুলে ধরাহয়েছে। জাদুঘরে রয়েছে স্বাধীনতা যুদ্ধে অগ্রনী ভূমিকাপালনকারী ব্যক্তিত্বদের সাহসী নেতৃত্ব ও ভুমিকার মুর‌্যাল। তৎকালীন সেনাপ্রধান, উপপ্রধান, বীর উত্তম, জাতীয় চার নেতা, তারামন বিবি, সেতারা বেগমের ম্যুরাল রয়েছে জাদুঘরে। জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ ৩০জন নেতার তেলচিত্র আছে জাদুঘরে। কিন্তু নির্মাণের এতদিনেও সর্বসাধারণের জন্য খুলে দেওয়া হয়নি এগুলো।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.