Templates by BIGtheme NET
Home / কৃষি সমাচার / গাজীপুরে গমের ব্লাস্ট রোগ ব্যবস্থাপনা শীর্ষক ইনসেপশন ওয়ার্কশপ

গাজীপুরে গমের ব্লাস্ট রোগ ব্যবস্থাপনা শীর্ষক ইনসেপশন ওয়ার্কশপ

নিউজ ডেস্ক, ১১ এপ্রিল:

গাজীপুরের জয়েবেপুরে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইন্সটিটিউটের(বারি) সম্মেলন কক্ষে দিনব্যাপী গমের ব্লাস্ট রোগ ব্যবস্থাপনা শীর্ষক ইনসেপশন ওয়ার্কশপ অনুষ্ঠিত হয়েছে।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিএআর আই’র মহাপরিচালক ড. আবুল কালাম আজাদ। বিএআর আই’র পরিচালক (রিসার্চ) ড. মো: লুৎফর রহমান সেশন চেয়ারম্যান হিসেবে কারিগরী অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন।
কর্মশালায় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, গম গবেষণা কেন্দ্র, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (বাকৃবি), বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (বশেমুরকৃবি), বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইন্সটিটিউট, বাংলাদেশ আণবিক কৃষি গবেষণা ইন্সটিটিউট (বিনা), কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর, কৃষি গবেষণা ফাউণ্ডেশন(কেজিএফ), সিমিট সহ গম গবেষণা, গমের উৎপাদন ও বিতরণের সাথে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে জড়িত প্রায় শ’খানেক উদ্ভিদ রোগতত্ব বিজ্ঞানী ও কর্মকর্তারা।

বিশেষজ্ঞদের মতামতানুসারে গমের ব্লাস্ট রোগ সম্পর্কে এই অনুষ্ঠান থেকে যে বিশেষ তথ্য বেরিয়ে এসেছে। তার মধ্যে- জীব বৈচিত্র্য সম্পন্ন রোগ নিয়ে স্বতঃসিদ্ধ ভবিষ্যৎ বাণী করা বেশ জটিল। আজকে একটা সমস্যা রয়েছে তো অাগামীতে আরো জটিল সমস্যা আসতে পারে, বিএআরআই, বিনা, বাকৃবি এবং বশেমুরকৃবি যৌথভাবে, কেজিএফ এর সহায়তায় গমের ব্লাস্টের উপরে মৌল ও ফলিত গবেষণা করে যাচ্ছে। সহসা এ ব্যাপারে একটা ভাল ফলাফল পাওয়া যাবে, বলে আশা করা যায়, বশেমুরকৃবি Genome sequencing & Genome editing নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে এবং তাঁরা আশাবাদী যে জীববৈচিত্র্য প্রযুক্তি (Biotechnology) ব্যবহার করে এ ব্যাপারে অলৌকিক (Miracle) কিছু একটা পাওয়া যাবে, আপাতত: আশার খবর হলো থড় বা হেডিং স্টেজে গম খেতে ছত্রাকনাশক নাটিভো স্প্রে করে ভাল ফল পাওয়া যাবে, আকস্মিকভাববে গম গবেষণা সেন্টার, বারি গম ৩৩ নামে যে গমের জাতটি ছাড়করণ করেছে, সেটা আপাত: ব্লাস্ট রোগ প্রতিরোধী। ফলে এ জাতটি ব্যবহার করে ব্লাস্ট রোগের প্রকোপ অনেকটাই কমতে পারে।

মুক্ত আলোচনায় গমের ব্লাস্ট রোগ সম্পর্কে বাস্তব অভিজ্ঞতার বর্ণনা করেন মেহেরপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপিরচালক কৃষিবিদ ড. আখতারুজ্জামান বলেন, ২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারি মাসের মধ্যভাগে বাংলাদেশের মধ্যে প্রথম মেহেরপুর জেলায় গমের এই ভয়াবহ ব্লাস্ট রোগ দেখা যায়, অতি দ্রুত সেটা ছড়িয়ে পড়ে পার্শ্ববর্তী চুয়াডাঙ্গা, ঝিনাইদহ, মাগুরা, কুষ্টিয়া, যশোর প্রভৃতি ৭টি জেলাতে। সেই থেকে দেশ বিদেশের কৃষি বিজ্ঞানীরা আকস্মিক এই ব্লাস্ট রোগের ভয়াবহতায় হতবিহবল হয়ে পড়েন। প্রথম বছরে কোন কিছু বুঝে ওঠার আগেই মেহেরপুরে প্রথম বছরে ১৩৮৭৫ হেক্টর আবাদী গমের মধ্যে ৯৬৪০ হেক্টর জমি ব্লাস্ট আক্রান্ত হয়ে পড়ে এবং ৭টি জেলায় গমে ব্লাস্ট আক্রান্ত মোট জমির পরিমাণ দাঁড়ায় ১৫০০০ হেক্টর, যার সিংহভাগ মেহেরপুর জেলায়; ফলে সে বছর গমের ফলন মারাত্মক ভাবে ব্যহত হয়। ২০১৭ সালে সরকারিভাবে মেহেরপুর সহ কয়েকটি জেলায় গম চাষ নিষিদ্ধ করা হলেও মেহেরপুরে ৩৯৯০ হেক্টর আবাদী গমের জমিতে ১৬ হেক্টর জমি আবারো ব্লাস্ট রোগ আক্রান্ত হয়ে পড়ে। চলতি ২০১৮ বছরে চাষকৃত ৬২১৫ হেক্টর জমিতে গমের চাষ হয়। কৃষি গবেষকগণের ত্বরিত পরামর্শনুসারে ব্যবস্থা গ্রহনের কারণে এ বছরে মেহেরপুরে গমের ব্লাস্ট রোগ দেখা দেয়ার সাথে সাথে সেটা নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হয়েছে। ফলে চলতি বছরে মেহেরপুরে ব্লাস্ট আক্রান্ত গম খেতের পরিমাণ ছিল মাত্র ০.৬ হেক্টর। তিনি আরো বলেন, আগামী বছরগুলো থেকে গমের ব্লাস্ট রোগের পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হবে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.