Templates by BIGtheme NET
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / জাতীয় উন্নয়নে নারী পুরুষ, সাংবাদিক আলাদা নয়

জাতীয় উন্নয়নে নারী পুরুষ, সাংবাদিক আলাদা নয়

Toslima khatunতছলিমা খাতুন:

নানা প্রতিকূলতা সত্তেও বাংলাদেশ এগোচ্ছে। চলমান রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা এবং বিশ্বব্যাপী আবহাওয়ার পরিবর্তন জনিত বিপর্যয় যদি কাটিয়ে উঠতে পারে তাহলে নিঃসন্দেহে এ দেশের অগ্রগতি অবশ্যম্ভাবী। এদেশে সাংবাদিকতায় নারীর পদচারণা শুরু বিটিশ আমল থেকেই। বর্তমান প্রযুক্তির যুগে বেতার টেলিভিশন, রেডিও, অনলাইন মিলিয়ে দেড় শতাধিক প্রতিষ্ঠানে কাজ করছে নারীরা। প্রতিদিন এ পেশায় যোগ হচ্ছে নতুন মুখ। পেশা হিসেবে সাংবাদিকতাকে বেছে নিয়েছে অনেকেই। এটা কেবল তাদের একার পক্ষে সম্ভব হয়নি সহযোগিতার হাত বাড়িয়েছে পুরুষরাই। সাংবাদিকতা নারী পুরুষ উভয়ের জন্য চ্যালেঞ্জিং পেশা। ভয়কে জয় করে এগিয়ে যাচ্ছে তারা। এক্ষেত্রে খুব একটা আশাবাদী হতেও পারছি না। কিছু নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি পুরুষপ্রধান এই ক্ষেত্রটিতে পেশাগত, মনস্তাত্তিক, সামাজিক, পারিবারিক ও পারিপাশ্বিক নানা প্রতিক‚লতাকে মোকাবিলা করে টিকে থাকতে হচ্ছে নারীদের।

বাংলাদেশের সংবিধানে পেশাবৃত্তির স্বাধীনতা নিশ্চিত করা হলেও মেধা এবং যোগ্যতা থাকার পরও নারীরা তাদের নিজ আসন শক্ত করতে পারেনি যথাযথভাবে। এর কারণ হিসেবে বলা যায় সমাজে নারীদের বৈষম্য ও বঞ্চনার ইতিহাস বহুদিনের। এখনো অনেক প্রতিষ্ঠান আছে যেখানে নারীদের কাজ করার সুষ্ঠ পরিবেশ তৈরি হয়নি। নারীদের প্রতি অর্মযাদাকর দৃষ্টিভঙ্গি প্রতিনিয়ত তাদের এ জগতে প্রবেশ ও টিকে থাকতে বাধা দেয়। এগুলো মাথায় রেখে নিজের কাজটা করতে হবে নিখুতভাবে। নারীরা অনেক ঝুকি নিয়ে চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করছেন, মেধারও ঘাটতি নেই তারপরও তাদের মধ্যে পদোন্নতির ক্ষেত্রে চরম বৈষম্য করা হয়। স্বীকৃতি পাচ্ছে না যোগ্যকর্মী হিসেবে। অধিকাংশ নারী সাংবাদিক ডেস্কে কাজ করছেন, যারা যোগ্যতায় অনেকটা এগিয়ে তাদেরকে যেকোনো ভাবে থামিয়ে রাখা হয়। কর্মের অনিশ্চিয়তা তো আছেই। দক্ষতা বাড়াতে তাদের প্রশিক্ষণের সুযোগও কম দেয়া হয়। বর্তমানে রাজনীতি, অপরাধ বিটে নারীরা সাহসের সঙ্গে কাজ করছেন। তারপরও তাদের অনেকের কণ্ঠে হতাশার সুর। এর কারণ নারীদের কাজে ভরসা করতে না পারা। কর্তৃপক্ষের বেশির ভাগেরই ধারণা তারা পারবে না। এটা তাদের পুরানো মানসিকতা। বর্তমানেও আছে ব্যাপকভাবে। তারা আবার জোরালোভাবে এটাও স্বীকার করেন, পুরুষের চেয়ে নারী সাংবাদিকরা কাজ করে সচেতনভাবে। পুর“ষরা চা সিগারেটের জন্য অনেকটা সময় অফিসের বাইরে থাকেন। এরকম সমাজে নারীকে শ্রদ্ধা আর সম্মানের জায়গাটা অর্জন করে নিতে হবে যোগ্যতা ও দক্ষতা দিয়ে। অনেক নারীরা বিয়ের পর হারিয়ে যান। এক সময় যারা দাপদের সঙ্গে কাজ করে নিজের অবস্থান তৈরি করেন তারাই শুধুমাত্র পরিবার গঠতে গিয়ে থেমে যান। এটা ঠিক নয়, পরিবার নিয়েই তাদের এগিয়ে যাওয়া উচিত। আমার তো মনে হয় এখন সচেতন পরিবারের সদস্যরা কেউ অসহযোগিতা করবে না। প্রগতিশীল সমাজের দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তন করার দায়িত্ব নারী পুরুষ সকলের।
সাংবাদিকরা সমাজের প্রতিনিধি ও শিক্ষক। নির্দিষ্ট পাঠ্যসূচি প্রতিষ্ঠানের অধীনে থাকা শিক্ষার্থীদের শেখানো নয়, তারা ভুল শুদ্ধ সমাজের চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দেয়। সরকার ও সমাজকে সতর্ক ও পরামর্শ দিয়ে গতিশীল করে। কারো গোলামী ও তোষামোদী নয়। এটি চাকুরি এবং পদন্নোতি পেতে সহায়তা করলেও টিকে থাকাটা কঠিন হয়। সাংবাদিকতার পরীক্ষা প্রতি মুহুর্তের। আসুন নারী পুরুষ এ বিভক্তি না করে সবাই এগিয়ে নিয়ে যায় এই সমাজটাকে। আজকের তরুণ সাংবাদিকরারাই আগামীর সমাজ ও দেশের প্রতিনিধিত্ব করবে। মেধা ও যোগ্যতা দিয়ে তারা জায়গা করে নেবে যোগ্য আসন। জাতীয় উন্নয়নে নারী পুর“ষ সাংবাদিক আলাদা নয় এক সঙ্গে কাজ করব নতুবা গোষ্ঠী বিভক্তিতে জাতীয় উন্নয়ন দারুণভাবে বাধাগ্রস্ত হবে।
লেখক পরিচিতি:-সহ-সম্পাদক, দৈনিক মানবকন্ঠ, ঢাকা

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.