Templates by BIGtheme NET
Home / ইতিহাস ও ঐতিহ্য / জীর্ণ-পুরাতনকে ভাসিয়ে…… এসো হে বৈশাখ,এসো এসো…….

জীর্ণ-পুরাতনকে ভাসিয়ে…… এসো হে বৈশাখ,এসো এসো…….

10152436_1524791707747931_6020757358024055419_nমেহেরপুর নিউজ ২৪ ডট কম,১৪ এপ্রিল:
‘মুছে যাক গ্লানি/ঘুচে যাক জরা/ অগ্নিস্নানে শুচি হোক ধরা/রসের আবেশ রাশি/শুষ্ক করে দাও আসি।…’
গত বছরের সব জীর্ণ-পুরাতনকে ভাসিয়ে নতুন করে জীবন শুরু করার বার্তা নিয়ে এসেছে বছরের প্রথম দিন পহেলা বৈশাখ। বাঙালির প্রাণের আর মনের মিলন ঘটার দিন আজ। সব বিভেদ, জরা আর দুঃখকে ভুলে বাঙালি গাইছে নতুনের গান। বরণ করে নিচ্ছে নতুন বছরকে।
প্রার্থনা একটাই বৈশাখের শক্তিতে মঙ্গল আর শুভ যেন ভরিয়ে দেয় বাঙালির জীবনকে। একই শক্তিতে বাঙালি যেন পরাভূত করতে পারে সব অশুভ শক্তিকে। তাই তো ধর্ম-বর্ণ-নির্বিশেষে আজ দেশের সর্বস্তরের মানুষ একাত্ম হয়ে গাইছে রবীন্দ্রনাথের সেই চিরচেনা গানÑ ‘এসো হে, বৈশাখ এসো এসো, তাপস নিঃশ্বাস বায়ে, মুমূর্ষুরে দাও উড়ায়ে, বৎসরের আবর্জনা দূর হয়ে যাক যাক যাক…।’
আজ সরকারি ছুটি। বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে দেশবাসীর প্রতি পৃথক বাণীতে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
আনন্দে-উচ্ছ্বাসে মেতে উঠেছে আজ গোটা দেশ। কবিগুরুর ভাষায়  ‘নব আনন্দে জাগো আজি নবরবিকিরণে/শুভ্র সুন্দর প্রীতি-উজ্জ্বল নির্মল জীবনে…।’ নতুন বছরে নতুন স্বপ্ন বুনবে আজ বাংলার কৃষক। নতুন হালখাতা খুলবেন ব্যবসায়ীরা।
জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ‘তোরা সব জয়ধ্বনি কর/ তোরা সব জয়ধ্বনি কর/ ঐ নূতনের কেতন ওড়ে কালবোশেখীর ঝড়।…’ এ কবিতার ভেতর দিয়েই নতুন বছরে সব অপ্রাপ্তি ভুলে নতুন সম্ভাবনার দ্বার উন্মোচন করবে বাঙালি জাতি।
মেহেরপুরে বর্ষবরণ শুরুহবে মঙ্গল শোভাযাত্রার মধ্যে দিয়ে। এবারের মঙ্গল শোভাযাত্রার প্রতিপাদ্য বিষয় ‘জাগ্রত কর, উদ্ধত কর, নির্ভয় কর হে’। বাঙালির এ আয়োজনে নেই কোনো ধর্মের দেয়াল, নেই কোনো সংস্কার। আছে কাছে আসার, কাছে টানার বাঙালিয়ানা। আছে এক অনাবিল আনন্দে অবগাহনের আহ্বান।

একদিন যে পহেলা বৈশাখ মূলত সীমাবদ্ধ ছিল বণিকদের হালখাতার মধ্যে, তা-ই এখন পরিণত হয়েছে সব বাঙালির উৎসবে। বাংলাদেশে গত শতাব্দীর ষাটের দশক থেকে জাতিপরিচয়ের পুনরাবিষ্কার ও স্বাধীনতা-অভিসারী জাতীয়তাবাদী আন্দোলনের গতিধারায় নবর্বষবরণ নতুন মাত্রা পেয়েছে। এখন তা স্ফূরিত আপন আচার ও সংস্কৃতির বর্ণিল প্রকাশে।
সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে আজ এক অপার উচ্ছ্বাস-সুখ অনুভূত নিয়ে ঘুম ভাঙবে প্রতিটি বাঙালির। দরোজায় এসে করাঘাত করবে পাখি ডাকা সকালের প্রথম রোদমাখা বৈশাখ। নতুন বছরের সূর্যালোকে নতুন করে উদ্ভাসিত হবে চির শ্যামল বাংলা। ভোর থেকে শুরু করে দিনমান চলবে নানা আনন্দ-অনুষ্ঠান। নাগরদোলা, তালপাতার বাঁশি আর পান্তা-ইলিশের স্বাদ। নগরজীবনের অনেককে টেনে নিয়ে যাবে স্মৃতিময় শৈশবে।
জানা গেছে, বাংলা সাল গণনার ইতিহাসটি স্বাভাবিকভাবেই কৃষকদের সুবিধার দিকে তাকিয়ে তৈরি করা হয়েছিল। বাংলা মোগল সাম্রাজ্যভুক্ত হওয়ার পর কৃষকদের কাছ থেকে কর আদায়ের ক্ষেত্রে বিরাট সমস্যার সৃষ্টি হয়েছিল। হিজরি সাল অনুযায়ী রাজকীয় কার্যাবলী তখন সম্পন্ন হতো। হিজরি সালের দুর্বলতার কারণে দিল্লির সম্রাটরা বছরের একটি নির্দিষ্ট দিনে কৃষকদের কাছ থেকে কর আদায় করতে পারতেন না। চান্দ্র সালের কারণে নির্দিষ্ট মৌসুমের নির্দিষ্ট দিন নির্ধারণ করা বেশ কঠিন ছিল তখন। ফলে কর আদায়ের সময় রাজকর্মচারীদের সঙ্গে কৃষকদের অপ্রীতিকর ঘটনা প্রায়ই ঘটত। বাংলা থেকে সবচেয়ে বেশি কর আদায় করতেন সম্রাটরা। তাই বাংলার কৃষকদের সঙ্গেই বেশি গ-গোল হতো। এই বিব্রতকর পরিস্থিতি থেকে মুক্তির উপায় বের করেন সম্রাট আকবর। তিনি ফসলের দিকে লক্ষ্য রেখে সৌরবর্ষ ইলাহি সাল চালু করেন। পরবর্তীকালে এ ইলাহি সালই বাংলা সালে পরিচিতি পায়। ইলাহি সাল প্রবর্তিত হয় ২১ মার্চ, ১৫৮৪ খ্রিস্টাব্দে, ৮ রবিউল আউয়াল, ৯৯২ হিজরি সালে। বাংলা সালের গণনা শুরু সম্রাট আকবরের সিংহাসনে আরোহণের একমাস পর, ১১ এপ্রিল ১৫৫৬ খ্রিস্টাব্দ থেকে। মূল খ্রিস্টীয় সাল থেকে বাংলা সালের বয়স ৫৯৩ বছর ৩ মাস ১১ দিন কম।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful