Templates by BIGtheme NET
Home / সম্পাদকীয় ও উপ সম্পাদকীয় / তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন উন্নয়নের প্রয়োজনীয়তা ও করণীয়

তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন উন্নয়নের প্রয়োজনীয়তা ও করণীয়

রফিকুল আলম:
৩১মে বিশ্ব তামাক মুক্ত দিবস। বিশ্বের অন্যান্য দেশের সাথে বাংলাদেশও এদিনটি পালন করে। প্রতিবছর দিনটির জন্য একটি প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করা হয়ে থাকে। এবছরের প্রতিপাদ্য হলো “The WHO Framework Convention on Tobacco Control” । বাংলাদেশে নির্ধারণ করা হয়েছে ”ফ্রেমওয়ার্ক কনভেনশন অন টোব্যাকো কন্ট্রোল (এফসিটিসি)র আলোকে আইনের সংশোধন চাই”।
ডাব্লিউএইচও এফসিটিসি হলো তামাক নিয়ন্ত্রণে  পৃথিবীর সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ দলিল। ডাব্লিউএইচও এর উদ্যোগে প্রথমে বিষয়টি আলাপ আলোচনায় আসে এবং তা ফলপ্রসুও হয়।  জনস্বাস্থ্যের উন্নয়নে এই চুক্তি একটি অর্থবহ স্মারক ও নিদর্শন। এই চুক্তিটি ২০০৫ সালে কার্যকর হয়েছে। জাতিসঃঘের ইতিহাসে সম্ভবত এটাই প্রথম চুক্তি যা ১৭০টিরও বেশী দেশ ব্যাপকভাবে খুব দ্রুত সমর্থন করে মেনে নিয়েছে।
ধুমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার (নিয়ন্ত্রণ) আইন ২০০৫ জনস্বাস্থ্যের উন্নয়নে একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ। আইনটি প্রণয়নের  ফলে দেশে তামাক নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রমে বেশ অগ্রগতিও সাধিত হয়েছে। পাশাপাশি আইনটির কার্যকর বাস্তবায়নে কতিপয় সীমাবদ্ধতার কারণে আইন বাস্তবায়নে নানা প্রতিবন্ধকতার সম্মুখীন হতে হচ্ছে। তামাক নিয়ন্ত্রণ কার্যক্রম জোরদার করার লক্ষ্যে  তা সংশোধন করে প্রতিবন্ধকতা গুলোর সমাধান প্রয়োজন।
এছাড়া আইনটি পাসের পরবর্তী সময়ে তামাক কোম্পানিগুলো নিত্য নতুন কার্যক্রমের মাধ্যমে আইনকে পাশ কাটিয়ে মানুষকে ধুমপানে উদ্বুদ্ধ  করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। আইনের বিভিন্ন ফাঁকফোকরের কারণে তামাক কোম্পানী গুলো তাদের পণ্যের প্রচারণা ব্যাপকভাবে চালিয়ে যাচ্ছে।  তামাক কোম্পানিগুলোর নিত্য নতুন কার্যক্রম সমূহ বন্ধ করতে আইনের উন্নয়ন ও সংশোধন প্রয়োজন। এছাড়া পরিবর্তিত পরিস্থিতির সাথে সামঞ্জস্য রেখে আইন উন্নয়নের পদক্ষেপ গ্রহণ তামাক নিয়ন্ত্রণের জন্য অতি গুরুত্বপূর্ণ।
নানা কারণে প্রথম পর্যায়ে অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় আইনে সংযুক্ত করা সম্ভব হয়নি। তবে সরকার ও তামাক নিয়ন্ত্রণ সংগঠনগুলোর ধারাবাহিক  উদ্যোগের  কারণে আইনটি সংশোধনের জন্য একটি বড় সহায়ক শক্তি। এছাড়া বাংলাদেশ সরকার আন্তর্জাতিক তামাক নিয়ন্ত্রণ চুক্তি ফেমওয়ার্ক কনভেনশন অন টোব্যাকো কন্ট্রোল (এফসিটিসি)  র‌্যাটিফাই বা সমর্থন করার প্রেক্ষিতে এ চুক্তি অনুসারে আইনটি উন্নত করার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। এফসিটিসি’র আলোকে তামাক নিয়ন্ত্রণ  আইন ২০০৫ সংশোধন অত্যন্ত জরুরী কারণ  এ আইনের দূর্বলতার কারণে দেশে তামাক নিয়ন্ত্রণ বাধা গ্রস্ত হচ্ছে।
আইন উন্নয়েনর প্রয়োজনীয়তা বলতে আমরা সংক্ষিপ্তভাবে বলতে পারি,
সময়ের সাথে সাথে আইন প্রয়োগ ও বাস্তবায়নের প্রতিবন্ধকতা দূর করা, বিদ্যমান আইনকে আরো শক্তিশালী করা। এফটিসিটি সমর্থন করায় আন্তর্জাতিক আইনের বাধ্যবাধকতা এবং এফটিসিটির সঙ্গে সমঞ্জস্য  রেখে আইন উন্নয়ন। তামাক কোম্পানী কর্র্তৃক আইনকে পাশ কাটানোর কার্যক্রম নিয়ন্ত্রণ ও আইনকে জনকল্যাণমুখি করে বাস্তবায়নে জানসাধারণের অংশগ্রহণ বৃদ্ধি।।
বিদ্যমান আইনের কতিপয় উল্লেখযোগ্য সীমাবদ্ধতার কথা এখানে উল্লেখ করা দরকার। যেমন- সাদাপাতা, জর্দ্দা, গুল জাতীয় তামাকজাত দ্রব্যকে আইনে সংজ্ঞায়িত করা হয়নি। এগুলো ধোঁয়া বিহীন তামাক এবং দেশের ২৭ ভাগেরও বেশী জনগোষ্ঠী তা ব্যবহার করছে। পাবলিক প্লেস ও পরিবহনে ধুমপানের স্থানের বিধান রয়েছে কিন্তু বাস্তবতা ভিন্ন। কর্মস্থল, বেসরকারী প্রতিষ্ঠান, রেষ্টুরেন্ট, অযান্ত্রিক পাবলিক পরিবহন ধুমপানমুক্ত স্থানের আওতায় আনা হয়নি। ধুমপানমুক্ত স্থান রাখতে ব্যর্থ হলে কোন ধরনের জরিামানার বিধান করা হয়নি। সামাজিক কর্মসূচীসহ নানা ধরনের পরোক্ষ কার্যক্রমের মাধ্যমে তামাক কোম্পানীর বিজ্ঞাপন প্রাচারিত হচ্ছে যা কোনভাবেই রহিত করা হয়নি। আমাদের দেশে এক বিশাল জনগোষ্ঠী নিরক্ষর তাই বিড়ি সিগারেটের প্যাকেটের গায়ে লিখিত স্বাস্থ্য সতর্কবাণী নিরক্ষর লোকদের কাজে আসছে না। উল্লেখ্য তামাক কোম্পানিকে জরিমানার কোন বিধান নাই।
তাছাড়া পত্রিকান্তরে দেখা যাচ্ছে কিছু কিছু তামাক নিয়ন্ত্রন  সংগঠন তামাকজাত দ্রব্যের উপর কর বৃদ্ধি করার জন্য  বিভিন্ন ভাবে দাবী জানিয়ে যাচ্ছে। তারা মানব বন্ধন, অবস্থান কর্মসূচী, লেটার ক্যাম্পেইন, সাক্ষর গ্রহণ অভিযান ইত্যাদি করে এই বিষয়টি সরকারের দৃষ্টিতে আনার প্রয়াস চালিয়ে যাচ্ছে। গত ২০ বছরে নিত্য ব্যবহার্য জিনিষপত্রের মূল্য কয়েকগুণ বৃদ্ধি পেলেও  তামাক বা তামাকজাত দ্রব্যের উপর তেমন কোন কর বৃদ্ধি হয়নি। যাহোক আমি ঐ প্রসঙ্গে না যেয়ে ধুমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ আইন সংশোধনের ক্ষেত্রে কি পদক্ষেপ না যেতে পারে বা বিবেচনায় আনা যেতে পারে সে বিষয় কিছু আলোকপাত করার চেষ্টা করব।
সংজ্ঞা সংক্রান্ত
তামাকজাত দ্রব্যের সংজ্ঞায় বিড়ি, সিগারেট, চুরুট, গুল, জর্দ্দা, খৈনী, সাদাপাতা (মতিহার), সিগার এবং পাইপে ব্যবহার্য মিশ্রন (মিক্সার) সহ সকল প্রকার তামাকজাত দ্রব্যকে সংযুক্ত করা। সংজ্ঞায় কর্তৃত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা পরিধি বৃদ্ধি করা এবং সহজে জরিমানা আদায় ও আইনের প্রয়োগের ব্যবস্থা নিশ্চিত করা। পুলিশকে আ্ইন প্রয়োগের ক্ষেত্রে সম্পৃক্ত করা এবং পরিবহন কর্তৃপক্ষ ও টাস্কফোর্স সদস্যদের জরিমানা করার ক্ষমতার  বিধান করতে হবে এবং পাবলিক প্লেস ও পরিবহনের সংজ্ঞা সুনির্দিষ্ট করা।
ধুমপানমুক্ত স্থান
পাবলিক প্লেস ও পরিবহনে ধুমপানের স্থান সংক্রান্ত বিধান বাতিল করা, বেসরকারী প্রতিষ্ঠান, কর্মস্থল রেষ্টুরেন্টসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠান ও জনসমাগমস্থলকে পাবলিক প্লেসের সংজ্ঞায় নিয়ে আসা। যান্ত্রিক পাবলিক পরিবহনকে ধুমপানমুক্ত করা, কর্মক্ষেত্রকে সম্পূর্ণ ধুমপানমুক্ত করা এবং ধুমপানমুক্ত স্থান তৈরী করতে ব্যর্থ হলে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের শাস্তির বিধান করা।
সচিত্র স্বাস্থ্য সতর্কবানী
তামাকজাত দ্রব্যের মোড়কে ৫০ শতাংশ জুড়ে ক্ষতিকর দিক তুলে ধরে সচিত্র স্বাস্থ্য সতর্কবাণী প্রদান করা  যাতে নিরক্ষর জনগন ছবি দেখে তার ক্ষতিকর দিক সহজে বুঝতে পারে ।
তামাকজাত দ্রব্য বিক্রয় স্থলে সরকার কর্তৃক নির্ধারিত ও নির্দেশিত সচিত্র স্বাস্থ্য সতর্কবাণী প্রদান। তামাকজাত পণ্যের মোড়কের কোন প্রকার ব্রান্ড এলিমেন্ট বা অন্য কোন উপায়ে লাইট, মাইল্ড, লো টার এজাতীয় শব্দ, চিহ্ন বা ডিজাইন ব্যবহার নিষিদ্ধ করা। প্যাকেট ব্যাতীত ও দশ শলাকার নীচে তামাকজাত দ্রব্য ক্রয় বা বিক্রয় নিষিদ্ধ করা।
তামাকজাত দ্রব্যের বিজ্ঞাপন নিষিদ্ধ
তামাকজাত দ্রব্যের সকল ধরনের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ বিজ্ঞাপন নিষিদ্ধ করা, সিনেমা, নাটক, প্রামাণ্যচিত্র সহ  অন্য মাধ্যমে তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহারের দৃশ্য প্রচার বা প্রদর্শন নিষিদ্ধ করা। আন্তঃরাষ্ট্রীয় তামাকজাত দ্রব্যের বিজ্ঞাপন নিষিদ্ধ করা ।
তামাক কোম্পানীর কার্যক্রম নিয়ন্ত্রণ
স্বার্থান্বেষী গোষ্ঠী হতে তামাক নিয়ন্ত্রণ নীতি ও আইন সুরক্ষায় এফসিটিসির আর্টিকেল ৫.৩ এর বিষয় সমূহ আইনের সংযুক্ত করা। তামাক কোম্পানী গুলোর বিরুদ্ধে দেশের যে কোন নাগরিককে মামলা করার অধিকার প্রদান এবং জরিমানা ও শাস্তি বৃদ্ধি। আইন ভঙ্গের প্রেক্ষিতে তামাক কোম্পানীগুলোর জরিমানা ও শাস্তির পরিমান বৃদ্ধি করা ও তামাক কোম্পানীকে আইন ভঙ্গের প্রেক্ষিতে অভিযুক্ত, দোষী সাব্যস্ত ও জরিমানার বিধান করা। গত ২৭ মে দৈনিক সংবাদে ”ধোঁয়াবিহীন তামাকের ব্যবহার বৃদ্ধি পাচ্ছে” শিরোনামে প্রকাশিত খবরে বক্তারা তামাক কোম্পানির আইন ভঙ্গের জরিমানার পরিমাণ ১০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত বৃদ্ধি করার কথা বলেছেন এবং অনাদায়ে ৬ মাসের কারাদন্ডের বিধান আইনে সংযুক্ত করার জন্য জোর সুপারিশ করেছেন।
তামাক চাষ নিয়ন্ত্রণ ও বিকল্প ফসল
তামাকের বিকল্প চাষ ও কর বৃদ্ধির জন্য নীতিমালা প্রণয়নের বিধান সংযুক্ত করা ও সরকারের পক্ষ হতে তামাক কোম্পানিকে ঋণ প্রদান, সার বরাদ্দ, কর মওকুফ বা অন্যান্য সুবিধাদি বন্ধের বিধান করা।
আইন মনিটরিং, বাস্তবায়ন ও অর্থায়ন
তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন মনিটরিং ও মূল্যায়নের বিষয়টি সংযুক্ত করা, সরকারীভাবে তামাক বিরোধী সচেতনতার লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় নীতিমালার বিধান সুস্পষ্টভাবে যুক্ত করা। তামাক কোম্পানীগুলো হতে আলাদা স্বাস্থ্য কর আদায়   এবং আইনের মাধ্যমে ”জাতীয় তামাক নিয়ন্ত্রণ সেল” গঠন নিশ্চিত করা।
তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন উন্নয়নে করণীয়
তামাক  নিয়ন্ত্রণ আইন উন্নয়নের পক্ষে জনমত সৃষ্টি। স্বেচ্ছাসেবী উন্নয়ন সংস্থা ও গণমাধ্যমের কর্মীদের তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন উন্নয়ন কার্যক্রম পরিচালনায় উৎসাহী করা। স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, জাতীয় সংসদের প্রতিনিধিদের নিকট আইন উন্নয়নের প্রয়োজনীয়তার বিষয়গুলোর তুলে ধরা এবং তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন উন্নয়নের প্রয়োজনীয়তার বিষয়টি গণমাধ্যম, আলোচনা সভাসহ বিভিন্ন কার্যক্রমে তুলে ধরা।
সবশেষে একটি কথায় বলা যায় তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন বাস্তবায়নে বর্তমান আইনের সংশোধনের বিকল্প নেই।  ধুমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ করতে শুধু আইন সংশোধন করেই হবে না। এখানে সরকারী যন্ত্রের কোন শৈথিল্য থাকলে চলবে না। থাকতে হবে রাজনীতিবিদদের সহযোগিতা ও সদিচ্ছা সাথে সাথে সচেতন গণমানুষের সম্পৃক্ততা।
লেখক
সভাপতি
মেহেরপুর রিপোর্টার্স ইউনিটি

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful