Templates by BIGtheme NET
Home / অতিথী কলাম / দুর্যোগ ব্যবস্থাপনার পথিকৃৎ রাষ্ট্রনায়ক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনার পথিকৃৎ রাষ্ট্রনায়ক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান

imagesখায়রুল আনাম খান:

আজ ১৩ অক্টোবর‘‘আন্তর্জাতিক দুর্যোগ দিবস”কে সামনে রেখে একটি লেখা লিখবো বিষয়টি ভাবতেই আমাকে আন্দোলিত করে তুলছে। কিন্তু কিভাবে এই লেখাটা শুরু করবো, তা নেহায়েতই আমাকে বিপাকে ফেলেছে, যার অন্যতম একটি কারণ হয়ত হতে পারে, আমার ছাত্রজীবন এবং রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির সাথে দীর্ঘ ৪০ বছরের কর্মজীবনের দুর্যোগ বিষয়ক অভিজ্ঞতা ও বেদনার স্মৃতির ঝুলিটা বেশ সমৃদ্ধ বলে। এর বাইরেও,International Red Cross and Red Crescent Societyes (IFRCS) এর ডেলিগেট হিসাবে ২০০৪ সালে সুনামি ও ২০০৬ সালের Earthquake অপারেশনে বছরাধিকাল Indonesia-তে কাজ করার অভিজ্ঞতাও এ লেখালিখতে আমাকে অনুপ্রাণিত করেছে। “কোথা থেকে, কোন বিষয়টি নিয়ে লেখাটা শুরু করবো?” এই প্রশ্নটাই এখন নিজের মধ্যে ঘুরপাক খাচ্ছে। ভেবে দেখলাম, আমার চাকুরী জীবনের সিংহভাগটাই কেটেছে বাংলাদেশর দক্ষিণাঞ্চলের উপকূলীয় জেলা, উপজেলা ও বিচ্ছিন্ন দ্বীপাঞ্চলগুলোতে। তাই দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিষয়ে আমার এই লেখাটি আন্তর্জাতিক দুর্যোগ প্রশমন দিবসের প্রতিপাদ্য বিষয়কে তাৎপর্যপূর্ণ করে তুলবে বলে আমার দৃঢ় বিশ্বাস।

mujib_16742বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতার পূর্ব ও পরের ২৫০টি ছোট বড় ঘূর্ণিঝড়ের গতিপ্রকৃতি লক্ষ্য করলে দেখা যায় যে, সেগুলোর মধ্যে অন্তত ১৫ থেকে ২০টি ঘুর্ণিঝড় প্রচন্ড তীব্রতা ও ধ্বংসলীলা চালিয়ে বাংলাদেশের উপকূল অতিক্রম করেছিল। তম্মধ্যে, ১৯৬২, ১৯৬৩ এবং ১৯৬৫ সালের ঘুর্ণিঝড় আমাদের স্মৃতিপটে দাগ ফেলতে সক্ষম হয়েছিল কারণ উক্ত তিনটি ঘুর্ণিঝড়ে সে সময় পূর্ব পাকিস্তানে প্রায় লক্ষাধিক লোক মারা যায়। ফলশ্রুতিতে,১৯৬৬ সালে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ কর্তৃক গৃহিত রেজুলেশনে তদানিন্তন League of Red Cross and Red Crescent Societies (LORCS)-কে পূর্ব পাকিস্তানে ঘূর্ণিঝড়ে নিহতদের সহায়তা এবং স্থায়ী ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য অনুরোধ জানিয়েছিলো। জাতিসংঘের অনুরোধের প্রেক্ষিতে বিষয়টি নিয়ে কাজ শুরু করেছিলো বলে জানা যায়। ১২ নভেম্বর, ১৯৭০ সালে ৫ মাত্রার প্রলয়ংকারী ঘুর্ণিঝড়টি৩ লক্ষ ৫০ হাজার উপকূলবাসীর প্রাণ সংহার করেছিল। বিধ্বস্ত করেছিল হাজার হাজার কোটি টাকার সম্পদ। এক ঘণ্টারও কম সময়ের সেই ঘূর্ণিঝড়ে গৃহহীন হয় লক্ষ লক্ষ মানুষ। ইতিহাসের এই সময়টি সত্যই আমাদের জন্য বেদনাদয়ক। কারণ, ১৯৭০ সালে ডিসেম্বরে পূর্ব পাকিস্তানের সাধারণ নির্বাচন হওয়ার কথা ছিল। নির্বাচনের পূর্বে এই প্রাকৃতিক বিপর্যয় তৎকালীন বাংঙ্গালীর অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে বিচলিত করে তুলেছিল।

যতদূর জানা যায়,ঘুর্ণিঝড় পীঁড়িত অসহায় মানুষের পাশে বঙ্গবন্ধুর আপোষহীন অবস্থানের কারণে ১৯৭০ সালের নির্বাচন পিছিয়ে দিতে বাধ্য হয়েছিল, যা পরে ঐ বছরের ১৭ ডিসেম্বর তারিখে অনুষ্ঠিত হয়েছিল। এই প্রলয়ঙ্করী ঝড়ের কারণে সংঘটিত প্রাণহানী এবং ক্ষয়-ক্ষতিকে সামনে রেখে বঙ্গবন্ধু সেই সময়ের স্বাধীনতার আন্দোলনকে আরও বেশি তীব্রতর করেছিলেন। এই ঝড়টি শুধুমাত্র বাংলাদেশের স্বাধীনতা ইতিহাসের একটি যোগসূত্রই নয়, বরং এই ঝড়টির বিয়োগ গাথা ও ধ্বংসলীলায়এক রাতেই উপকুলের ৩,৫০,০০০ মানুষের মৃত্যু হয়, বিধ্বস্ত হয়বারো লক্ষ ঘরবাড়ী ও ২০,০০০ মাছ ধরার নৌকা। ঘুর্ণিঝড়ের প্রভাবে ১০.৪ মিটার জ্বলচ্ছাসের কারণে লক্ষ লক্ষ গবাদী পশু, ফসলি জমি, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ক্ষয়-ক্ষতি জনদরদী বঙ্গবন্ধু ভুলতে পারেননি বলেই, স্বাধীনতা উত্তর League of Red Cross and Red Crescent Societies (LORCS) ও বাংলাদেশ রেড ক্রসের উদ্দ্যোগে “ঘুর্ণিঝড় প্রস্তুতি কর্মসূচি” গঠন প্রক্রিয়া শুরু হয়। যতদুর জানা যায়, সিপিপি সূচনালগ্নে ২ মাসের একটি নিবির সমিক্ষা করা হয়েছিল যার অন্তুর্নিহিত উদ্দেশ্য ছিল সিপিপির স্থায়ীত্বতা ও কার্যকরী করার জন্য সাংগঠনিক রূপরেখা তৈরী, প্রশিক্ষণ প্রদান, সরঞ্জামাদী ও কর্ম এলাকা নির্ধারণ এবং এর স্বেচ্ছাসেবক অন্তর্ভূক্তিকরণ ইত্যাদি।

বলা যায়, তৎকালীন রেড ক্রসের চেয়ারম্যান মরহুম গাজী গোলাম মোস্তফা (এম.পি)সমীক্ষার অন্যান্য বিষয়গুলি যেমন গুরুত্বের সাথে নিয়েছিলেন তার চাইতেও বেশী গুরুত্ব দিয়েছিলেন এর সদস্য কারা হবে? সমিক্ষার প্রাপ্ত ফলাফলে এটা নিশ্চিত হয়েছিল যে, এর দীর্ঘমেয়াদী স্থায়ীত্বের জন্য সমাজ ভিত্তিক দুর্যোগ ব্যবস্থাপনার কাঠামো তৈরী করতে হবে, যেখানে সমাজে বসবাসরত তরুণ জনগোষ্ঠিই এর নিয়ামক ভূমিকায় অবতীর্ণ হবে। সেই সাথে নিরপেক্ষভাবে মানবিক এই সেবা প্রদানের ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক রেড ক্রস এবং রেড ক্রিসেন্ট এর মৌলিক নীতিমালাকে ধারণ করে এই মহৎ কাজে আত্ননিয়োগ করতে হবে। সেই লক্ষ্যে প্রতিটি ওয়ার্ডে ১০ জন পুরুষ সদস্যের একটি সাংগঠনিক ইউনিট গঠন করতে হবে, যাদের দলগতভাবে ০৫ -টি বিশেষ শ্রেণীতে বিভক্ত করে দায়িত্ব দেয়া হবে, যেমনঃ সংকেত, আশ্রয়, প্রাথমিক চিকিৎসা, উদ্ধার এবং খাদ্য। তাদেরকে প্রয়োজনীয় সরঞ্জামাদিও প্রদান করা হবে, যেমনঃ সংকেত বিভাগের জন্য রেডিও, মেগাফোন, সার্চ লাইট, প্রাথমিক চিকিৎসা ব্যাগ, রেইন কোর্ট, গাম বুট, উদ্ধার সরঞ্জামাদি ইত্যাদি। উক্ত দলটি গঠনের উদ্দেশ্য ছিল ওয়ার্ড/গ্রামে বসবাসকারী ২০০০ লোকের মধ্যে ঘুর্ণিঝড়ের আগাম সতর্ক সংকেত প্রচার, ঘুর্ণিঝড় চলাকালীন সময়ে অসহায় এবং বিপদাপন্ন জনসাধারণকে আশ্রয় কেন্দ্রে ও মুজিব কেল্লায় নিয়ে যাওয়া, আহতদের প্রাথমিক চিকিৎসা প্রদান,আশ্রিতদের জরুরী খাদ্য সরবারহ নিশ্চিত করা এবং দুর্যোগ উত্তোর আশ্রয় গ্রহণকারীদের নিজ নিজ বাড়ী/ঘরে পৌঁছে দিতে সহায়তা করা।
এছাড়াও ঘুর্ণিঝড় মোকাবিলায় আগাম সংবাদ ও সতর্ক সংকেত স্বেচ্ছাসেবক দ্বারা জনসাধারণের নিকট পৌছে দিতে কার্যকরী উপায় হিসেবে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় যে, আবহাওয়া বিভাগের সাথে সমন্বয় করে প্রাপ্ত সংকেতসমূহ দ্রুত জনসাধারণের মাঝে পৌঁছে দেওয়ার জন্য একটি ওয়ার্লেস নেটওয়ার্ক স্থাপন করা, যা ঘুর্ণিঝড় প্রস্ততি কার্যক্রমের প্রধান কার্যালয় থেকে ওয়্যারলেস সেট যোগে নিরবিচ্ছিন্ন ভাবে মাঠ পর্যায়ে সিপিপি আফিস সমূহে পৌঁছে দিতে সক্ষম হবে। শুধু তাই নয়, ঘুর্ণিঝড়ের গতিপথ নিরূপনের জন্য রেড ক্রসের উদ্যোগে সমুদ্র সৈকত কক্সবাজারে একটি রাডার কেন্দ্র স্থাপন করা হবে। পরিশেষে দিন, মাস, বছর উপকুলীয় গ্রাম/মহল্লায় পরিভ্রমন সহ অসংখ্য মানুষের সাথে আলোচনা করে তাদের সম্মতি ও অংশগ্রহনে দ্বারা কর্মসূচীটির আনুষ্ঠানিক অঙ্কুর উদগম ঘটে ১৯৭২ সালের ডিসেম্বরে চর হিয়াওে স্বেচ্ছাসেবকদের বিশাল সমাবেশ আয়োজনের মাধ্যমে।ঘূর্ণিঝড় প্রস্ততি কর্মসূচী (সিপিপি) সংগঠণ সৃষ্টির নেপথ্যে ইতিহাসের দিকে তাকালে দেখতে পাওয়া যায় যে, এই সংগঠনটি ভীত রচনায় LORCS এর প্রত্যক্ষ ভূমিকার সাথে স্বাধীন দেশের রেড ক্রস সোসাইটির প্রত্যক্ষ ভূমিকা ছিল যা আজ শুধুই ইতিহাস এবং স্বেচ্ছাসেবকদের প্রেরণার উৎস হিসাবে কাজ করছে। ১৯৬৯ – ১৯৭২ পর্যন্ত সুইডিস রেডক্রস ও LORCS এর আর্থিক সহায়তায় মিঃ ক্লাস হেইস ষ্টোম (মৃতঃ) এবং জাতীয় সোসাইটির কতিপয় উদ্দ্যোমি তরুণ কর্মকর্তা সেই সময়কার ঘূর্ণিঝড় প্রস্ততি কর্মসূচীটির প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক মোঃসাইদুর রহমান (বর্তমানেপরিচালক, বিডিপিসি), এমদাদ হোসেন, পরিচালক (অবঃ), এ কে এম হারুন আল রশিদ,পরিচালক অপারেশন (অবঃ), মোঃআবুল কাসেম সরকার (মৃতঃ) এবং মোঃগোলাম রাব্বানী, উপ-পরিচালক (অবঃ) -রা অন্যতম। প্রতিষ্ঠার পরবর্তীতে বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি, ঘূর্ণিঝড় প্রস্ততি কর্মসূচীর জন্য ১৯৭২ সালে কর্মসূচীটির আওতায় ২০ টি উপকূলীয় উপজেলায় ২০,৪৩০ জন স্বেচ্ছাসেবক নিয়োগ, প্রশিক্ষণ প্রদান, ওয়্যারলেস কেন্দ্র স্থাপন এবং স্বেচ্ছাসেবকদের মাঝে ১,৯৭০ টি রেডিও, ২০০০টি মেগাফোন সহ ইলেক্ট্রিক সাইরেন, ২০০০টি টর্চলাইট, ১৫০০ -টি প্রাথমিক চিকিৎসা বক্স, ৫০০ টি ওয়াকিটকি স্বেচ্ছাসেবকদের মধ্যে বিতরণ করে, যা দিয়ে পরবর্তীতে ঘুর্ণিঝড়ের আগাম সতর্ক সংকেত প্রচারে সক্ষম হয়। এছাড়াও সুইডিস রেড ক্রসের আর্থিক এবং স্থানীয় রেড ক্রসের সার্বিক সহায়তায় কক্সবাজারে একটি রাডার কেন্দ্র স্থাপনকরা হয়।

পাঠক, এ পর্যায়ে আমি শুধু দুর্যোগ ব্যবস্থাপনায় বাংলাদেশের অর্জনকে আপনাদের সামনে তুলে ধরার প্রয়াস করছি মাত্র। আমাদের স্মৃতির বিস্মরণ প্রায়সই ঘটে থাকে,ফলে ইতিহাসের অনেক সাফল্যই আমরা ভুলে যেতে বসেছি। আমার লেখনি দ্বারা জ্ঞান বিতরনের দুঃসাহসিক উদ্দ্যোত্ত আমি দেখাচ্ছি না। আমি শুধু ইতিহাসের যেটুকু সাফল্য আমরা আজ অবদি অর্জন করতে সক্ষম হয়েছি শুধু তার কথাই আপনাদের সামনে তুলে ধরতে চাই।

যুদ্ধ বিধ্বস্ত বাংলাদেশে ঘুর্ণিঝড় প্রস্তুতি কর্মসূচীটি প্রতিষ্ঠা ছিল একটি দুঃসাধ্য কাজ তাথাপিও মানবতার দিক বিবেচনা করে তদানিন্তন বাংলাদেশ রেড ক্রস সোসাইটি সীমাহীন আর্থিক সংকটের মধ্যেও উক্ত কর্মসূচীটির কার্যক্রম LORCSএর সহায়তায় পরিচালনা করে। কিন্তু LORCS কর্তৃক দীর্ঘ মেয়াদী সহায়তা অঙ্গীকার না থাকায় এবং নব গঠিত সোসাইটির আর্থিক সীমাবদ্ধতার কারণে কর্মসূচীটি পরিচালনায় সমস্যার সৃষ্টি হয়। এমতাবস্থায়, বাংলাদেশ রেড ক্রস সোসাইটি সরকারের সহায়ক মানবিক প্রতিষ্ঠান হিসেবে তদানিন্তন প্রধানমন্ত্রী জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর সহায়তা কামনা করে। এরই প্রেক্ষিতে সিপিপি পরিচালনায় আর্থিক সঙ্কট দেখা দেয়ায় তিনি (বঙ্গবন্ধু) রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতার নিশ্চয়তা প্রদান করেন। যুদ্ধবিধস্ত স্বাধীন বাংলাদেশে মাত্র ১ বছর ৬ মাসের মাথায় এই বিরল সাহসী উদ্দ্যোগের দৃষ্টান্ত আজও ইতিহাস হয়ে আছে। জাতির পিতা ও বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী হিসাবে বঙ্গবন্ধু এই কর্মসূচীটির রাষ্ট্রীয় আর্থিক সহায়তার প্রতিশ্রুতি দিয়ে কর্মসূচীটির ২০৪৩০ জন স্বেচ্ছাসেবকের স্বেচ্ছাশ্রমকে উদ্ভুদ্ধ করার মাধ্যমে সম্মানিত সহ অনুপ্রাণিত করেছেন এবং মানবতার মূল্যবোধকে সমুন্নত রাখতে সহায়তা প্রদান করেছিলেন। গবাদিপশু, হাঁস-মুরগিসহ বিপদাপন্ন মানুষকে রক্ষার জন্য জাতিসংঘের আর্থিক সহায়তায় তাঁর উদ্দ্যোগে উপকুলীয় এলাকায় শতাধীক বহুতল ঘুর্ণিঝড় আশ্রয়কেন্দ্রসহ ১৩৭ টি মাটির কিল্লা (যা মুজিব কিল্লা নামে স্থানীয়ভাবে অধিক পরিচিত) নির্মিত হয় যেখানে দুর্যোগ প্রাক্কালে গবাদি পশু সহ মানুষ একসাথে আশ্রয় নিতে পারে।

এই মহান নেতা ছাত্র জীবন থেকেই অসহায় মানুষের অধিকার ও মর্যাদা ফিরে পাবার জন্য আন্দোলন ও সংগ্রাম করেই ক্ষান্ত হননি বরং তাদের নিশ্চিত ভবিষ্যতের কথা ভেবেই স্বাধীনতার উত্তরকালে বিপদাপন্ন মানুষ ও গবাদিপশুর জন্য নিরাপদ আশ্রয়স্থল হিসাবে পাকা বহুতল ঘুর্ণিঝড় আশ্রয় কেন্দ্র এবং মাটির কিল্লা নির্মাণ কাজে রাষ্ট্রীয় নির্দেশনা প্রদান করেছিলেন। তাঁর এই রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় ঘুর্ণিঝড় প্রস্তুত কর্মসূচীর ২০,৪৩০ রেড ক্রিসেন্ট স্বেচ্ছাসেবক উপকূলীয় এলাকায় প্রায় দেড় কোটির অধিক জনগণকে ঘূর্ণিঝড়ের আগাম পূর্বাভাস বার্তা প্রচার, উদ্ধার, প্রাথমিক চিকিৎসা প্রদানের উদ্যোগ নিয়েছিলেন। বঙ্গবন্ধুর এই উদ্যোগের হাত ধরেই স্বাধীন বাংলাদেশে রোপিত হয়েছিল দুর্যোগ ব্যবস্থাপনার বীজ যা কাল পরিক্রমায় এক বিরাট মহীরুহ হয়ে আজ দেশ ও আন্তর্জাতিক পরিমন্ডলে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনায় অনুকরণীয় রাষ্ট্র এবং ঘুর্ণিঝড় প্রস্তুত কর্মসূচীটি পরিণত হয়েছে Roll Model হিসেবে।

তিনি যেমনি অধিকার বঞ্চিতদের জন্য স্বাধীন দেশ গঠনে অগ্রণী ভূমিকা রেখে জাতির পিতার উপাধীতে ভূষিত হয়েছেন ঠিক তেমনি স্বাধীন বাংলাদেশ গঠনের পর তিনিই এদেশে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনার ভীত রচনা করে গেছেন।যা পর্যায়ক্রমে আজকের বাংলাদেশে প্রাকৃতিক দুর্যোগ ব্যবস্থাপনার সক্ষমতা অর্জনে সামর্থতা পেয়েছে। জাতি গঠনে তিনি যদি জাতির পিতা সম্মানে ভূষিত হতে পারেন, তবে দুর্যোগ ব্যবস্থায়পনার পথিকৃত হিসাবেও বঙ্গবন্ধুকে তাঁর প্রাপ্য সম্মান ও মর্যাদা প্রদান করা আজ অপরিহার্য। যদিও ইতোমধ্যে আমরা অনেক সময় পেছনে ফেলে এসেছি, তাতে কি? সম্মান প্রদান বা কাউকে সম্মান জানানোর বিষয়টি কোন সময়,কালে আবদ্ধ রাখা উচিৎ নয়। আমাদের অন্তরের শ্রদ্ধা, ভালোবাসা ও তাঁর প্রতি অকৃতিম কৃতজ্ঞতা জানানোর এখনই সময়। বঙ্গবন্ধুর প্রাপ্য মর্যাদা ১৩ অক্টোবর‘‘আন্তর্জাতিক দুর্যোগ প্রশমন দিবস”কে কেন্দ্র করে অথবা অন্য একটি বিশেষ দিনকে নির্ধারণ করে তাঁকে মরনোত্তর এই সম্মান আমরা জানাতে নিশ্চয় দ্বিধা বোধ করবো না। এক্ষেত্রে আমার একান্ত অভিমত এই যে, দেশে ও দেশের বাইরে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনায় বঙ্গবন্ধুর উল্লেখযোগ্য অবদানকে স্মরণীয় করে রাখতে প্রতিবছর “১৩ অক্টোবর” আর্ন্তজাতিক দুর্যোগ প্রশমন দিবসে “বঙ্গবন্ধু” পুরস্কারের সূচনা করা যেতে পারে। যা দ্বারা বাংলাদেশ আবারো বিশ্ব দরবারে আরও একটি বিরল স্বীকৃতি অর্জনে সক্ষম হবে বলে আমি নিশ্চিত। এ পুরস্কার আমাদেও গোটা জাতিকে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনায় অনুপ্রাণিত, গর্বিত ও সম্মানিত করবে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful