Templates by BIGtheme NET
Home / অতিথী কলাম / বঙ্গবন্ধুর রাজনীতি করি

বঙ্গবন্ধুর রাজনীতি করি

এম এ এস ইমন:
বঙ্গবন্ধুর রাজনীতি করি, আওয়ামী লীগের না৷’ ছোটবেলায় খুব খটকা লাগতো৷ এটা কেমন কথা! বঙ্গবন্ধুর রাজনীতি করলে আওয়ামী লীগের রাজনীতি হয় না কিভাবে! সেই উত্তর ছোটবেলায় না মিললেও বড় হওয়ার পর মনে হয় উত্তরটা আমি নিজেই দিতে পারি৷
হ্যাঁ, শেখ মুজিবুর রহমান – বঙ্গবন্ধু হয়ে ওঠারও আগে থেকে রাজনীতি করতেন, এবং সেটা আওয়ামী লীগেরই রাজনীতি৷ কিন্তু একটা প্রশ্ন থেকেই যায়, আরো তো অনেক নেতা ছিলেন, যারা সে সময় অভিজ্ঞতা, বয়স সবকিছুতেই শেখ মুজিবের চেয়েও অনেক বেশি এগিয়ে ছিলেন৷
তাহলে শেখ মুজিব কি করে হঠাৎ করে বাঙালির আশা-আকাঙ্খার প্রতীক হয়ে উঠলেন? কারণ, বাংলার মানুষ কী চায়, কিভাবে তা আদায় করতে হবে তা সঠিক মুহূর্তে সঠিকভাবে তুলে ধরতে পেরেছিলেন একমাত্র তিনিই৷ নীতি-আদর্শের সংগ্রামে অন্য দল তো বটেই, নিজ দলের নেতাদের চেয়েও যোজন যোজন এগিয়ে ছিলেন তিনি৷
নিজেকে সৌভাগ্যবান মনে হয়, বড় হওয়ার পথে আশেপাশে অনেক মুক্তিযোদ্ধাকেই পেয়েছি৷ সুবিধা পাবেন জেনেও অনেকেই সার্টিফিকেট নেননি, কারণ তাঁরা মনে করতেন দেশ স্বাধীন করার যুদ্ধ তাঁরা সার্টিফিকেট পাওয়ার জন্য করেননি৷ বিভিন্নভাবে তাদের স্মৃতিচারণ কাছ থেকে শোনার সৌভাগ্য হয়েছে৷ তাদের কাছ থেকেই শোনা, ‘কিছু একটা হতে যাচ্ছে’ এমন তথ্য বঙ্গবন্ধুর কাছেও একাধিকবার এসেছিল৷ কিন্তু ‘বাঙালি আমার কিছু করতে পারে না’ এমন মনোভাব সবসময়ই ছিল তাঁর৷ মৃত্যুর শেষ মুহূর্ত পর্যন্তও তিনি মানতে পারেননি, বাঙালিরাই তাঁকে হত্যা করবে৷
যুদ্ধ হলো, দেশও স্বাধীন হলো৷ ৫২, ৬৯, ৭০, ৭১৷ গৌরবময় ইতিহাসের জন্ম দিয়েও মানবজাতির ইতিহাসের অন্যতম নৃশংস ঘটনাটির কালো দাগ থাকল আমাদের নিজেদের কপালেই৷ স্বাধীনতার পাঁচ বছরের মাথায় সপরিবারে স্বাধীনতার মূল ভূমিকায় থাকা ব্যক্তিটিকে হত্যা করাটা যেমন নৃশংস, হত্যার বিচার করা যাবে না, খোদ সংবিধানে এমন ভয়ংকর কালাকানুন জারি করাটা তার চেয়েও নৃশংসতম৷
১৯৭৫ সালের পর থেকে স্বাভাবিকভাবেই স্রোতের উলটো পথে হাঁটতে শুরু করে বাংলাদেশ৷ ইতিহাস থেকে একসময় বঙ্গবন্ধুর নাম মুছে ফেলার চেষ্টা হলেও, সে ইতিহাস আবার ফিরে এসেছে৷ কিন্তু আলোচনাটা বঙ্গবন্ধুর রাজনীতি নিয়ে নয়, বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে রাজনীতি৷ বিরোধী পক্ষের বঙ্গবন্ধুকে ‘বিতর্কিত করার’ রাজনীতি তো আছেই, খোদ আওয়ামী লীগেরও ‘চর্বিত চর্বন’, ‘অতিকথন’ এবং ‘অপপ্রয়োগ’ এই রাজনীতিতে মারাত্মক ভূমিকা রাখছে৷
স্বাধীনতার পর থেকে স্বভাবতই পাকিস্তানবিরোধী মনোভাব তো আছেই, পাশাপাশি বাংলাদেশে ধর্মীয়, সাম্প্রদায়িক, রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক, অর্থনৈতিক নানা কারণেই ভারতবিরোধী মনোভাবও প্রবল হয়ে উঠেছে৷ কিন্তু নিজের জন্মকে অস্বীকার করছে, এমন উদাহরণ কিন্তু এই দুই দেশেও নেই৷ ‘কায়েদে আজম’ মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ পাকিস্তান স্বাধীন হওয়ার এক বছরের মাথায় মৃত্যুবরণ করেন৷ তিনি মুসলিম লীগ করতেন৷ কিন্তু পরবর্তীতে ক্ষমতার পালা বদল হলেও কখনও জিন্নাহকে বিকৃতভাবে উপস্থাপন করা বা তাকে ইতিহাস থেকে মুছে ফেলার চেষ্টা হয়নি, বা তার প্রয়োজনও পড়েনি৷ জিন্নাহর পর দীর্ঘদিন মুসলিম লীগ ক্ষমতায় ছিল, পরবর্তীতে পূর্ব পাকিস্তানে আওয়ামী লীগ, এবং পশ্চিম পাকিস্তানে পিপলস পার্টি শক্তিশালী বিরোধীতা সৃষ্টি করলেও, সে আঘাত জিন্নাহর ওপর পড়েনি৷ মুসলিম লীগও জিন্নাহকে ‘নিজেদের’ করে নিয়ে বিশেষ সুবিধা আদায়ের চেষ্টার দিকে যায়নি৷
আজকের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সেদিন কান্নায় ভেঙে পড়েছিলেন। বলেছিলেন, এ ঘরটি আমার ছিল। আক্রোশে ওরা ঘরের সবকিছু ওলট-পালট করেছে। পাশেই এ ঘরটি বাবার। এই ঘরেই মা, ভাই-ভাবিরা একত্রে নিহত হন। বাথরুমে ওরা…মোহাম্মদ আলী জিন্নাহর ‘দ্বিজাতি তত্ত্ব’ নিয়ে বিতর্ক চলছে, আরো অনেকদিন চলবে৷ কিন্তু ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে কালিমালেপনের মতো ঘটনা জঙ্গিবাদে, সেনা অভ্যুত্থানে বিপর্যস্ত একটি দেশেও ঘটেনি৷
বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর দুই দশকে নানাভাবে ইতিহাস থেকে বঙ্গবন্ধুকে মুছে ফেলার চেষ্টা করা হয়েছে৷ হত্যার পর যারা ক্ষমতায় এসেছিল, তারা স্বভাবতই বুঝতে পেরেছিল, তীব্র প্রতিবাদ না হলেও, স্বাধীনতা, মুক্তিযুদ্ধ, বঙ্গবন্ধু শব্দগুলো ঠিকই রয়ে যাবে ইতিহাসের পাতায়৷ ফলে নিজেদের অবস্থান পাকাপোক্ত করতে বঙ্গবন্ধু এবং ইতিহাস বিকৃত করা ছাড়া উপায় ছিল না৷
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সব চেয়ে কাছের মানুষ ছিল খন্দকার মোস্তাক,এতো স্নেহ পাওয়ার পরেও সেই বেঈমানি করতে পরলো, উনি সেই খুনি মোস্তাক ।
স্বাধিকার আন্দোলনের পর থেকে, স্বাধীনতা লাভের পর থেকে বাংলাদেশে যেমন সমাজ গঠনের পথে এগোচ্ছিল, হঠাৎ করেই বাংলাদেশ ঠিক তার উলটো পথে যাত্রা শুরু করে৷ যারা এতোদিন অসাম্প্রদায়িক চেতনার বিরোধিতা করেও সুবিধা করতে পারছিল না, তারাই হঠাৎ হয়ে ওঠে ক্ষমতার কেন্দ্র৷ যে সাধারণ মানুষকে বঙ্গবন্ধু এত ভালোবাসতেন, তাঁদের কাছেই তাঁকে ফিরতে দিন৷ স্বাধীনতা, মুক্তিযুদ্ধ, বঙ্গবন্ধু, জয় বাংলা যত কুক্ষিগত করে রাখতে চাইবেন, ততই সাধারণ মানুষ থেকে দূরে সরে যাবেন৷ আলোচনার লক্ষ্য হোক বঙ্গবন্ধুর রাজনীতি, বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে রাজনীতি নয়৷

লেখক: আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় প্রচার ও প্রকাশনা উপ-কমিটির সদস্য

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful