Templates by BIGtheme NET
Home / অন্যান্য / বাল্য বিবাহমুক্ত জেলা গড়তে মেহেরপুর জেলা প্রশাসনের আন্দোলন

বাল্য বিবাহমুক্ত জেলা গড়তে মেহেরপুর জেলা প্রশাসনের আন্দোলন

DSC_0868তোজাম্মেল আযম:
মেহেরপুর জেলা প্রশাসন বাল্য বিবাহমুক্ত জেলা গড়তে আন্দোলন শুরু করেছে। প্রশাসনের বাল্য বিবাহ বন্ধের এই সামাজিক আন্দোলনে একাত্বতা ঘোষণা করে শরিক হয়েছে মেহেরপুর নিউজ ও স্থানীয় সাংবাদিকসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ। যারফলে ইতোমধ্যে জেলার অধিকাংশ মসজিদে, মাদ্রাসায়, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে, হাটে মাঠে, সভা সমাবেশে, জেলা প্রশাসনের সব ধরণের বৈঠকে বাল্য বিবাহের কুফল নিযে আলোচনা অব্যাহত আছে। সম্মিলিত এই আন্দোলন এখন সফলের পথে। আগামী ফেব্রুয়ারির শেষ সপ্তাহে মন্ত্রি পরিষদের সচিব আসছে মেহেরপুরে। সচিব মেহেরপুরকে বাল্য বিবাহমুক্ত জেলা হিসেব আনুষ্ঠানিক ঘোষণা করবে।

জেলা প্রশাসক মো: শফিকুল ইসলাম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক হেমায়েত উদ্দীন, জেলা প্রশাসক পত্মি অ্যাডভোকেট লতিফা খানম চৌধুরী সহ জেলা ও উপজেলা প্রশাসন যেখানে বাল্য বিবাহ সেখানেই আইন প্রয়োগ করে পাত্র পাত্রির অভিভাবক, কাজি, ইমামের জেল জরিমানা করায় বাল্য বিবাহ আর নেই বললেই চলে। বাল্য বিবাহ প্রতিরোধে মেহেরপুর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থী একটি ডিভাইসও তৈরী করে ফেলেছে। এমনই যখন অবস্থা তখন আন্দোলন সফল হতে তো বাধ্য।

DSC_0308বাংলাদেশে বাল্য বিবাহ একটি মারাত্মক সমস্যা৷ ইউনিসেফের শিশু ও নারী বিষয়ক প্রতিবেদন অনুসারে বাংলাদেশের ৬৪% নারীর বিয়ে হয় ১৮ বছরের আগে৷ বাল্য বিবাহ নিরোধ আইন অনুসারে ছেলেদের বিবাহের বয়স নুন্যতম একুশ এবং মেয়েদের বয়স আঠারো হওয়া বাধ্যতামূলক৷ অশিক্ষা, দারিদ্র, নিরাপত্তাহীনতা ও সামাজিক নানা কুসংস্কারের কারনে এ আইনের তোয়াক্কা না করে বাল্য বিবাহ হয়ে আসছে৷ বাল্য বিবাহের প্রধান কুফলঃ নারী শিক্ষার অগ্রগতি ব্যাহত হওয়া ছাড়াও বাল্য বিবাহের কারনে মাতৃমৃত্যুর ঝুঁকি বৃদ্ধি পাচ্ছে৷ মা হতে গিয়ে প্রতি ২০ মিনিটে একজন মা মারা যাচ্ছেন৷ অন্যদিকে প্রতি ঘন্টায় মারা যাচ্ছে একজন নবজাতক৷ নবজাতক বেঁচে থাকলেও অনেক সময় তাকে নানা শারীরিক ও মানষিক জটিলতার মুখোমুখি হতে হয়৷ অপ্রাপ্তবয়স্ক মা প্রতিবন্ধী শিশু জন্মদান করতে পারে৷ এছাড়া এতে গর্ভপাতের ঝুঁকিও বৃদ্ধি পায়৷ বাল্য বিবাহের ফলে বিবাহ বিচ্ছেদের আশংকা তৈরী হওয়া ছাড়াও নানা পারিবারিক অশান্তি দেখা দেয়৷

IMG_1102অ্যাডভোকেট লতিফা খানম বলিষ্ঠ কণ্ঠে উচ্চারণ করেন, একটি সুস্থ জাতি পেতে প্রয়োজন একজন শিক্ষিত মা, বলেছিলেন প্রখ্যাত মনিষী ও দার্শনিক নেপোলিয়ন বোনাপাট। অথচ বিশ শতকের পরেও আমরা নেপোলিয়নের সেই বাণির মূল্যায়ন করতে পারিনি। আমরা সম্মিলিতভাবে স্ব স্ব অবস্থান থেকে বাল্য বিবাহের কুফল প্রতিটি মেয়েদের কাছে পৌঁছে দিতে পারলে আমাদের লক্ষ্য বাস্তবায়ন হবেই হবে।

মেহেরপুরের জেলা প্রশাসক মো: শফিকুল ইসলাম বলেন, সরকারের দিন বদলের অঙ্গীকার রয়েছে ২০২১ সালের মধ্যে শিশু মৃত্যুর হার প্রতি হাজারে ৫৪ থেকে কমিয়ে ১৫ করা হবে৷ ২০২১ সালের মধ্যে মাতৃমৃত্যুর হার প্রতি হাজারে ৩.৮ থেকে কমিয়ে ১.৫ করা হবে৷ বাল্যবিবাহ প্রতিরোধ করা না গেলে এই লক্ষ্যমাত্রা অর্জন সম্ভব হবে না৷

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক হেমায়েত হোসেন বলেছেন, বাল্য বিবাহ সংকুচিত করে দেয় কন্যা শিশুর পৃথিবী ৷ আমরা যদি সবাই সচেতন হই তাহলে কন্যা শিশুদের অধিকার প্রতিষ্ঠা হবে৷ দেশে মা ও শিশুর অকাল মৃত্যু রোধ করা সম্ভব হবে৷ তাই বাল্য বিবাহর বিরুদ্ধে এই আন্দোলন জেলাবাসীকেই চালিয়ে যেতে হবে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful