Templates by BIGtheme NET
Home / ইতিহাস ও ঐতিহ্য / মুজিবনগরকে ব্রাণ্ডিং করে বিশ্ব দরবারে পরিচিতি করার উদ্যোগ গ্রহণ করুন

মুজিবনগরকে ব্রাণ্ডিং করে বিশ্ব দরবারে পরিচিতি করার উদ্যোগ গ্রহণ করুন

কৃষিবিদ ড. আখতারুজ্জামান:
আজ ১৭ এপ্রিল ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস পালিত হচ্ছে মেহেরপুরের মুজিবনগর উপজেলার আম্রকাননের ছায়াতটে। সার্বিক ব্যবস্থপনায় রয়েছে মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রনালয় ও মেহেরপুর জেলা প্রশাসন। বর্ণিল সাজে সাজানো হয়েছে মুজিবনগরকে। সর্বোচ্চ নিরাপত্তার চাদরে ঢেকে দেয়া হয়েছে গোটা মুজিবনগর সহ মেহেরপুর জেলার গুরুত্বপূর্ণ সকল এলাকাকে। অগণিত অসংখ্য মানুষের ঢল নামতে শুরু করেছে অকুস্থলের সন্নিকটে; সমগ্র মেহেরপুর এলাকাতে অন্যরকমের নান্দনিকতায় উৎসবের আমেজ বিরাজমান রয়েছে। সাজ সাজ রব রব অবস্থা মেহেরপুরের আকাশে বাতাসে ।
মুজিবনগর মেহেরপুর জেলার একটা উপজেলা, দেশের প্রথম রাজধানী। ১৯৭১ সালের ১৭ এপ্রিল এখানে শপথ গ্রহণ করেন বাংলাদেশের প্রথম অস্থায়ী সরকার, পাঠ করা হয় বাংলাদেশ স্বাধীনতার ঘোষণাপত্র। শপথগ্রহণ এবং ঘোষণাপত্র পাঠের পর প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিন আহমেদ একটি বিবৃতির মাধ্যমে পূর্বতন বৈদ্যনাথতলার নাম রাখেন মুজিবনগর। সেই থেকে প্রতি বছর দিনটিকে স্মরণীয় করে রাখার মানসে সাড়ম্বরে উদযাপিত হয় ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস।
১৯৭১ সালের পর হতে একইভাবে মহোৎসবের মহড়ায় পালিত হয়ে থাকে জাতীয় এবং ঐতিহাসিক খ্যাত বাংলাদেশ সরকারের সূতিকাগারেরর এই মুজিবনগর দিবস। জাতীয় জন গুরুত্বপূর্ণ এই মুজিবনগর বিশ্ব দরবারে যতটা পরিচিত হওয়ার কথা ছিল আদতে তার কিছুই হয়নি। দুঃখজনক হলেও সত্য দেশ স্বাধীনের অনেক বছর পরে এখানে স্মৃতিসৌধ নির্মাণের সরকারি কাজ শুরু হয় ১৯৮৭ সালে। তৎকালীন স্বৈরাচারী প্রেসিডেন্ট হুসাইন মোহাম্মদ এরশাদ সাহেবের শাসনামলেই এখানে ২৩ স্তরের স্মৃতিসৌধ গড়ে তোলা হয়।
১৯৯৬ সালে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা মুজিবনগর কমপ্লেক্স নির্মাণের কাজ হাত দেন এবং ২০০০ সালে মুজিবনগরকে মেহেরপুরের একটা পূর্ণাঙ্গ উপজেলা হিসেবে স্বীকৃতি প্রদানের ব্যবস্থা করেন।
প্রায় ৮০ একর জায়গার উপর দাঁড়িয়ে আছে মুজিবনগর কমপ্লেক্স। আম্রকাননের ছায়া সুনিবিড় সুশীতল জায়গার পরিমাণ প্রায় ৪০ একর। এখানে আম গাছ রয়েছে ১৩০০ টি। তিনটি ধাপে ৬ স্তর বিশিষ্ট দুটি গোলাপ বাগান রয়েছে। এখানে আছে বঙ্গবন্ধু তোরণ, অডিটোরিয়াম, শেখ হাসিনা মঞ্চ, মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিকেন্দ্র, মসজিদ, হেলিপ্যাড, ২৩টি কংক্রিটের ত্রিকোণ দেয়ালের সমন্বয়ে উদীয়মান সূর্যের প্রতিকৃতিকে প্রতীক করে মুজিবনগর স্মৃতিসৌধ, প্রশাসনিক ভবন, টেনিস মাঠ, পর্যটন মোটেল, স্বাধীনতা মাঠ, স্বাধীনতা পাঠাগার, বিশ্রামাগার, পোস্ট অফিস, শিশুপল্লী, ডরমেটরি ও মুক্তিযুদ্ধের সেক্টরভিত্তিক বাংলাদেশের মানচিত্র। কমপ্লেক্সের উল্লেখযোগ্য বিষয় হলো ভাস্কর্য। বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণ, ঐতিহাসিক তেলিয়া পাড়া সম্মেলন, মুজিবনগর সরকারের শপথ অনুষ্ঠান, পাকবাহিনীর আত্নসমর্পণ, রাজাকার আল বদর, আল সামস এর সহযোগিতায় বাঙ্গালী নারী পুরুষের ওপর পাক হানাদার বাহিনীর নির্যাতনসহ খেতাব প্রাপ্ত মুক্তিযোদ্ধাদের ভাস্কর্যের মাধ্যমে তুলে ধরা হয়েছে।
প্রিয় পাঠক উপর্যুক্ত বিবরণ শুনে যেকোন পাঠক খুশিতে উল্লসিত হতে পারেন,; কিন্তু যারা হালে এসে মুজিবনগর কমপ্লেক্স দেখেছেন তাদের কাছে গোটা চিত্রটির বেহাল দশায় নিশ্চিতভাবেই কষ্ট লেগেছে। চাকুরি সূত্রে বেশ কয়েক বছর যাবত এ অফিস, সে অফিস করে মেহেরপুরে অবস্থানের কারণে বহুবার বহুভাবে সেখানে যেতে হয়েছে এবং এখনো যেতে হয় কিন্তু প্রগতিশীল একজন সাধারণ নাগরিক হিসেবে মুজিবনগর কমপ্লেক্সের শ্রীহীনতা দেখে ব্যথাতুর হয়েছি বারংবার।
প্রতি বছর মুজিবনগর দিবসের আগে এখানে ধোয়া মোছা আর রং তুলির আঁচড় পড়তে দেখা গেলেও এখানকার সামগ্রিক চিত্র সকরুণ, সন্দেহ নেই।
যাদুঘরের জীর্ণ দশা, মূল স্মৃতিস্তম্ভের নেই কোন যত্ন; পরিচর্যার অভাবে সহস্রাধিক আম বাগানের ফল ধারণ ক্ষমতা ক্রমাবনতির দিকে। ভাস্কর্য সমূহ অরক্ষিত। বাংলাদেশের মানচিত্রের নিম্নাংশে পানির দূষনের মাত্রা তীর্বতর; মানচিত্র দেখতে হয় উদার আকাশের উন্মুক্ত চাঁদোয়ার তলে দাঁড়িয়ে, গরমের দিনে সেটা ভীষণ কষ্টকর। সন্ধ্যা হলে জনমানব শূণ্য মুজিবনগর পরিণত হয় ভুতুড়ে পুরীতে। এমন আরো নানান অব্যবস্থা রয়েছে, এখানে।
১৯৯৬ থেকে আজ অব্দি তিন পর্বে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা রাষ্ট্রীয় ক্ষমতার ড্রাইভিং সিটে থাকার পরেও কেন আজও মুজিবনগরের যথাযথ শ্রীবৃদ্ধি হয়নি সেটা এক কষ্টকর জিজ্ঞাস্য! আপাদমস্তক স্বাধীনতার সপক্ষের মানুষ হিসেবে এ কষ্ট এ ব্যাথা আমার মত আরো অনেকের।
এতকিছুর পরেও মুজিবনগর বাংলাদেশের প্রথম রাজধানী কিনা সেটা নিয়ে তো প্রতিবেশী চুয়াডাঙ্গা জেলা কিছু প্রগতিবাদী মানুষ রীতিমত দাঁপিয়ে বেড়াচ্ছে। তাদের ভাষায় চুয়াডাঙ্গা নাকি বাংলাদেশের প্রথম রাজধানী; এ ব্যাপারে তারা এক ধাপ এগিয়ে সেখানে First Capital University of Bangladesh নামে একটা প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ও প্রতিষ্ঠা করে ফেলেছে। চুয়াডাঙ্গা বাংলাদেশের প্রথম রাজধানী হওয়ার ব্যাপারে তাদের যুক্তির অন্যতম হলো এটা হওয়ার কথা ছিল কিন্তু পরে ঘোষণর সময় সেটা আর হয়নি। এ নিয়েও মেহেরপুর বাসীকে তেমন একটা সরব হতে দেখিনি। তবে এ ব্যাপারে বিশিষ্ট সাংবাদিক, সমাজসেবক ও মেহেরপুর জেলা উন্নয়ন ফোরামের সভাপতি রফিকুল আলম সবিস্তার ব্যাখা দিয়েছেন। তাঁর দেয়া ব্যাখ্যার মধ্যে তিনি একটা চমৎকার বিষয় উল্লেখ করেছেন,“আমার ছেলের সাথে আপনার মেয়ের বিয়ে দেয়ার কথা হয়েছিল, কিন্তু কোন কারণে বিয়েটা হয়নি, তাই বলে কি আপনি আমার ছেলেকে জামাই বলতে পারেন?”।
প্রতি বছর ১৭ এপ্রিল সাড়ম্বরে এখানে মুজিবনগর দিবস পালন করা হয় ,আজও পালিত হচ্ছে হচ্ছে। এখানে আগমণ ঘটে বরেণ্য ব্যক্তিবর্গের । মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, পদস্থ অনান্য মন্ত্রী সহ খ্যাতনামা রাজনীতিক, আমলা ও নীতি নির্ধারকদের সরব আগমন ঘটে ;তাঁরা এসে অনেক কথার ফুলঝুরি ছড়িয়ে চলে যান, তারপরে সেই যা ছিল তাই; ফলে মুজিবনগরের সার্বিক উন্নয়ন আজও সেই তিমিরেই রয়েছে গেছে। বেশ মনে আছে ২০১১ সালে মুজিবনগর দিবসে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সদর্পে ঘোষণা করেন দর্শনা থেকে মুজিবনগর হয়ে মেহেরপুর পর্যন্ত ৫৩ কিমি রেল লাইন স্থাপন করা হবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সেই ঘোষণার ছিটেফোঁটাও বাস্তবায়ন হয়নি! তাহলে এটার দায়ভার তাহলে কার?
অথচ যথাযথ পরিকল্পনা আর পৃষ্ঠপোষকতায় মুজিবনগরকে করা যেতে পারে ইতিহাস ঐতিহ্যের ধারক বাহক সহ বাংলাদেশের সূতিকারের তথ্য সম্বলিত পৃথিবী খ্যাত যাদুঘর, ডামি বাংলাদেশ, প্রাকৃতিক শোভাবেষ্টিত নান্দনিক টুরিস্ট স্পট: হতে পারে বিশাল আকারের কনভেনশন সেন্টার, বিমানবন্দর; রেল স্টেশন, আবাসন রিসোর্ট, পরিকল্পিত ল্যাণ্ডস্কেপিং সম্পন্ন প্রাকৃতিক ফলদ বনজ ভেষজ ও সৌন্দর্যবর্ধক বৃক্ষরাজির সমাহার সহ অনেক কিছু। সর্বোপরি মুজিবনগরের মাটি আবহাওয়া ও প্রাকৃতিক সৌন্দর্য তো অসাধারণ নান্দনিকতায় পরিপূর্ণ। বিশ্ব দরবারে মুজিবনগরকে ব্রাণ্ডিং হিসেবে পরিচিত করানোটা মোটেই কঠিন কাজ না। বাংলাদেশের পর্যটন শিল্প বিশ্ব দরবারে সগৌরবে উদ্ভাসিত হয়ে বাংলাদেশের অর্থনীতির মোড় ঘুরিয়ে দিতে পারে ঐতিহাসিক মুজিবনগর। এর জন্যে দরকার সুদূরপ্রসারী একটা মাস্টার প্লান আর রোড ম্যাপ এবং সেটার যথাযথ বাস্তবায়ন।
স্বাধীনতার সাড়ে চার দশক পরেও কেন মুজিবনগরের আশানুরূপ শ্রীবৃদ্ধি হয়নি? এই ব্যর্থতার দায়ভার কম বেশী সবারই! মেহেরপুরবাসী যেমন এটা দায়ভার অস্বীকার করতে পারেন না, তেমনি পারেন না সরকারের নীতি নির্ধারকরাও।

পরিশেষে আমি একজন দেশপ্রেমিক এবং স্বাধীনতার স্বপক্ষীয় প্রগতিশীল মানুষ হিসেবে এ সম্পর্কিত আমার প্রত্যাশা নিচে তুলে ধরলাম:
★সরকারি গেজেট নোটিফিকেশনের মাধ্যমে বাংলাদেশের প্রথম রাজধানী মুজিবনগর এটার স্বীকৃতির যথাযথ বাস্তবায়ন করা।
★মুজিবনগর কমপ্লেক্সের অসমাপ্ত কাজ দ্রুত শেষ করা;
★নতুনভাবে মুজিবনগর কমপ্লেক্সকে আন্তর্জাতিক মানের করার জন্যে আরেকটি মাস্টারপ্লান তৈরি করা, যার মধ্যে থাকবে, আবাসন রিসোর্ট, কনভেনশন সেন্টার; ডামি বাংলাদেশের স্থাপনা, বিনোদনমূলক রাইড, প্রাকৃতিক উদ্যান ইত্যাদি;
★মুজিবনগরে বিমানবন্দর প্রতিষ্ঠা করা;
★দর্শনা থেকে মুজিবনগর হয়ে মেহেরপুর অব্দি ৫৩ কিমি রেল লাইন প্রবর্তন করা; যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ২০১১ সালে মুজিরনগর দিবসে ঘোষণা করেছিলেন;
★অনেকদিন পূর্বে গৃহীত সরকারি সিদ্ধানুসারে পূর্ণাঙ্গ স্থলবন্দর চালু করা;
★পুরানা বাগান পরিচর্যা এবং সীমানা প্রাচীরের পাশে অব্যবহৃত প্রায় ১০ একর জমি ল্যাণ্ড স্কেপিংয়ের মাধ্যমে দৃষ্টিনন্দন ফলদ, বনজ ও ভেষজ বাগান সৃজন করা;
★প্রস্তাবিত এই মেঘা প্রকল্প বাস্তবায়নে ভারত সরকারকে সম্পৃক্ত করা কারণ মুজিবনগর ব্রাণ্ডিং হলে সেটা প্রতিষ্ঠার পেছনে ভারতীয় অবিস্মরণীয় অবদানও বিশ্ব দরবারে প্রতিষ্ঠা পাবে।
★মুজিবনগরের উপরে বিভিন্ন তথ্য চিত্র তৈরি করে সেটা দুতাবাসের মাধ্যমে বিশ্ব সভায় পরিচিত করানোর উদ্যোগ গ্রহণ করা ইত্যাদি।
আমরা সেই সুদিনের প্রতীক্ষায় রইলাম, যেদিন বিশ্ব দরবারে স্ব গৌরবে মাথা উচুঁ করে স্ব-মহিমায় ব্রাণ্ডিং হবে মুজিবনগর। বিশ্ব সম্প্রদায় জানবে বাংলাদেশ সৃষ্টির প্রকৃতি ইতিহাস, যেখানে থাকবে ভারতের অকৃত্রিম বন্ধুসুলভ সহযোগিতার কথা, পাকিস্থানী হায়েনাদের বর্বরতার কথা। থাকবে গোটা বাংলাদেশের একটা মিনিয়েচার ডামি যা থেকে বাংলাদেশ ও বাংলাদেশের উন্নয়ন সম্পর্কে জানা যাবে। বিশ্ববাসী আরো জানবে “বাংলাদেশ মানেই মুজিবনগর, মুজিবনগর মানেই বাংলাদেশ”।
সেই সুদিনের প্রতীক্ষায় সুপ্রভাত বাংলাদেশ!
জয়তু ঐতিহাসিক মুজিরনগর দিবস।

………………

কৃষিবিদ ড. আখতারুজ্জামান,
উপপরিচালক
কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর, মেহেরপুর

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful