Templates by BIGtheme NET
Home / তথ্য প্রযুক্তি / মুজিবনগরে দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী মামুনের কম্পিউটার প্রশিক্ষণ কেন্দ্র উদ্বোধন

মুজিবনগরে দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী মামুনের কম্পিউটার প্রশিক্ষণ কেন্দ্র উদ্বোধন

1111মেহেরপুর নিউজ, ০৩ জানুয়ারি:
দৃষ্টি প্রতিবন্ধী ওমর ফারুক ওরফে মামুনের ‘আইকন আইসিটি ও কম্পিউটার প্রশিক্ষণ সেন্টার’ নামের প্রশিক্ষণ সেন্টারের যাত্রা শুরু হলো।
মঙ্গলবার সকাল ১১ টার দিকে মেহেরপুরের মুজিবনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স বাজারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এ প্রশিক্ষণ সেন্টারের উদ্বোধন করেন মুজিবনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: হেমায়েত উদ্দিন।
শিবপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রাক্তন প্রধান শিক্ষক মোয়াজ্জেম হোসেনের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মুজিবনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাজী কামাল হোসেন, মোনাখালী ও দারিয়াপুর ইউনিয়ন থেকে জেলা পরিষদের নবনির্বাচিত সদস্য আজিমুল বারী মুকুল, মুজিবনগর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ইজারুল ইসলাম, শিবপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুস সালাম। অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন আসলাম হোসেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী ও প্রশিক্ষন সেন্টারের পরিচালক ওমর ফারুক মামুন।
উদ্বোধনী কোর্সে ২ জানুয়ারি পর্যন্ত ওই ট্রেনিং সেন্টারে ৩০ জন প্রশিক্ষনার্থী ৬ মাসের বেসিক কম্পিউটার কোর্সে ভর্তি হয়েছেন।
উদ্বোধন শেষে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মুজিবনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হেমায়েত উদ্দিন, মামুন মুজিবনগর উপজেলার গর্ব। তার কর্মকান্ডে আমি অত্যন্ত আনন্দিত। একজন দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী হয়েও মামুন নিজে প্রশিক্ষক হয়ে কম্পিউটার প্রশিক্ষন সেন্টারের উদ্যোগ নিয়েছেন। তার উদ্যোগ আমাদের সবার অনুপ্রেরণা হয়ে থাকবে। উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে মামুনকে সকল সহযোগীতা করা হবে।
শিক্ষার্থী বিপাসা খাতুন বলেন, কম্পিউটারের প্রতি তেমন কোনো আগ্রহ ছিল না। কয়েকদিন আগে একটি টেলিভিশন চ্যানেলে মামুন ভাইয়ের একটি প্রতিবেদন দেখে কম্পিউটার শেখার আগ্রহ তৈরি হয়। তারপর মামুন ভাইয়ের সাখে কথা বললে মনে হয় না সে একজন দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী।
অপর শিক্ষার্থী রাবেয়া খাতুন বলেন, দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী মামুন ভাই খুব ভালো কম্পিউটার শেখান। তিনি অন্ধ হয়ে কিভাবে কম্পিউটার শেখান সে আগ্রহেই এখানে ভর্তি হয়েছি।
মামুনের চাচা আসলাম হোসেন বলেন, মামুন যখন মায়ের গর্ভে তখন কলকাতায় একটি ট্রেন দুর্ঘটনায় তার বাবা মারা যান। জন্মের পর থেকে আমরা পরিবারের পক্ষ থেকে তাকে লালন করে বড় করে তুলেছি। ছোটবেলাই থেকে সে অত্যান্ত মেধাবী ছিল। এসএসসি পরীক্ষার পর তার চোখের গ্লুকমা রোগ আক্রান্ত হয়ে সে অন্ধ হয়ে যায়। তারপরও সে বসে থাকেনি। নিজের চেষ্টাতেই কম্পিউটার প্রশিক্ষন নিয়ে নিজেকে প্রশিক্ষক হিসেবে তৈরি করেছে। সে যেন আরো ভালো কিছু করতে পারে তার সকলের সহযোগীতা কামনা করেন তিনি।
সভাপতির বক্তব্যে প্রাক্তন শিক্ষক মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, মামুন যখন প্রাইমারিতে পড়ত তখন বিভিন্ন ইংরেজি শব্দের অর্থ জানতে চাইত। তার জন্য নিজেকেও অনেক ইংরেজি শব্দের অর্থ জানতে হত। তখন থেকে একটি ডিকশনারী কাছে রাখতাম। সেই মামুন এসএসসি পরীক্ষার পর অন্ধ হয়ে গেলো শুনে খুব কষ্ঠ পেয়েছিলাম। পরে যখন শুনি সে সমাজ সেবার কম্পিউটার প্রশিক্ষক হয়ে ছেলেমেয়েদের প্রশিক্ষন দিচ্ছে বুকটা আনন্দে ভরে উঠেছিল। বয়স হয়েছে তারপরও তার কম্পিউটার ট্রেনিং সেন্টারের উদ্বোধন হচ্ছে শুনে চলে এসেছি।
দৃষ্টিপ্রতিন্ধী মামুন বলেন, আমি মেহেরপুর শহর সমাজসেবা কার্যালয়ে প্রশিক্ষক হিসেবে কর্মরত রয়েছি। মাঝেই মাঝেই আমার মনে হত মুজিবনগর এলাকার দরিদ্র ছেলে মেয়েরা মেহেরপুর শহরে গিয়ে ৬মাস ব্যাপী প্রশিক্ষন থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। তাদের সুবিধার্থে মুজিবনগরে এই প্রশিক্ষন কেন্দ্রের যাত্রা শুরু করা হলো।
444কে এই মামুন:
মেহেরপুরের মুজিবনগর উপজেলার শিবপুর গ্রামের আব্দুর রহমানের (মৃত) তিন ছেলের ছোট ছেলে ওমর ফারুক মামুন। ২০০২ সালে নবম শ্রেণীতে পড়া অবস্থায় দুচোখে গ্লুকমা রোগে আক্রান্ত হয়। রোগ নিয়েই ২০০৪ সালে গ্রামের মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পাশ করে। পরবর্তিতে ২০০৬ সালে এইচ এসসি পরীক্ষার কায়েকদিন আগে দুটি চোখ অন্ধ হয়ে যাওয়ায় সেবছর পরীক্ষা দেওয়া সম্ভব হয় না মামুনের। মামুনের জীবনে নেমে আসে অন্ধকার। এর পর থেকে বাড়িতে থেকে মায়ের সাথে সময় কাটে মামুনের। টেলিভিশনে ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি ড. এপিজে আবুল কালামের একটি কথা তার জীবনের মোড় ঘুরে যায়। কথাটি ছিল ‘স্বপ্ন সেটাই যেটা আপনাকে ঘুমাতে দেয় না’ । সেই স্বপ্নের মাধ্যমে মামুন নিজেকে পরিবর্তন করে নেয়। ২০১২ সালে ঝিনাইদহের এক দৃষ্টিপ্রতিবন্ধীর কাছে গ্রহণ করে কম্পিউটার প্রশিক্ষন। এর পর থেকে গ্রামের স্কুলে এবং বন্দুদের সহযোগীতায় শুরু হয় কম্পিউটার নিয়ে চর্চা। একই সাথে উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের এইচএসসি প্রোগ্রামে ভর্তি হয় এআরবি কলেজে। ২০১২ সালে সেখান থেকে এইচএসসি পাশ করে মামুন। বর্তমানে একই কলেজে বিএসএস প্রোগ্রামে লেখাপড়া চালিয়ে যাচেছ মামুন। নিজেকে কম্পিউটার সম্পর্কে দক্ষ গড়ে তুলে মেহেরপুর শহর সমাজসেবা কার্যালয়ে প্রশিক্ষক হিসেবে যোগ দেয় ২০১৫ সালের জুলাই মাসে। এর আগে মালয়েশিয়াতে অনুষ্ঠিতব্য দৃষ্টিপ্রতিবন্ধীদের একটি কম্পিউটার প্রশিক্ষন কর্মশালায় দেশের একমাত্র অংশগ্রহণ কারী হিসেবে অংশ গ্রহণ করে মামুন। সেখানে সম্মিলিথভাবে ৩য় স্থান অর্জন করে।
দৃষ্টিপ্রতিবন্ধীর জন্য মামুনের উৎসাহমুলক পরামর্শ, ‘দৃষ্টিভঙ্গীর পরিবর্তন করুন জীবন বদলে যাবে, পথে নামুন, পথের মালিকই আপনাকে পথ দেখিয়ে দেবে।’

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful