Templates by BIGtheme NET
Home / ইতিহাস ও ঐতিহ্য / মেহেরপুরের বৈশাখ সংক্রান্তির মেলা

মেহেরপুরের বৈশাখ সংক্রান্তির মেলা

dhumketuআবদুল্লাহ আল আমিন:
বাংলাদেশে চৈত্র সংক্রান্তি উপলক্ষে চড়ক পূজার মেলা ও শীতকালে পৌষ সংক্রান্তির ঐতিহ্য থাকলেও বৈশাখ সংক্রান্তির মেলার ঐতিহ্য তেমন নেই। দু’বাংলার মধ্যে কেবল মেহেরপুরের বড়বাজার সংলগ্ন সিদ্ধেশ্বরী কালী মন্দিরের সামনে ও বেতাই লালবাজারের কালীমন্দির প্রাঙ্গণে কয়েক’শ বছর ধরে বৈশাখ সংক্রান্তি উপলক্ষে মেলা বসে। মেহেরপুর কালী মন্দিরের সামনে বৈশাখ মাসের শেষদিনে যে মেলাটি বসে সেটি বৈশাখ সংক্রান্তির মেলা বা কালীবাড়ির মেলা নামে পরিচিত। আঠারো শতকে অবিভক্ত নদীয়ায় যেসব মন্দির প্রতিষ্ঠিত হয় সেগুলোর মধ্যে মেহেরপুর বড়বাজারের কালী মন্দিরটি অন্যতম। এটিকে নাট মন্দির বলা হয়। প্রয়াত গোপাল সাহার সহধর্মিনী পাঁচুবালা দাসী বাংলা ১৩৪৬ সালের ২০ আশ্বিন মন্দিরটি পুনর্নির্মাণ করেন। এই মন্দিরের কালীমূর্তি এখন নিত্য পূজিতা। এবারের মেলা কমিটির সম্পাদক বিশ্বনাথ সাহা ঐতিহ্যবাহী মেলা সম্পর্কে বলেন, ‘কবে থেকে এই মেলার সূচনা হয় তা কেউ বলতে পারেনা, তবে কয়েক যুগ ধরে এ মেলা হয়ে আসছে বলে অনেকে মনে করেন।’ কালীমন্দিরের কাছাকাছি ক্যাশ্ববপাড়া নিবাসী প্রয়াত বাউল জামাল সাঁই (৮০) একদিন আমাকে জানিয়েছিলেন যে, ছোটবেলা থেকেই সে বেতাই লালবাজার ও মেহেরপুরের বৈশাখ সংক্রান্তির মেলার কথা শুনেছে। চাপড়ার নিশ্চিন্তপুর থেকে সে এ মেলায় মামার সাথে এসেছে।’ গল্পকার, আবৃত্তিকার ও সংস্কৃতি-কর্মী শাশ্বত নিপ্পন জানালেন ‘ অবিভক্ত নদীয়ার প্রাচীন মেলাগুলোর অন্যতম মেহেরপুরের বৈশাখ সংক্রান্তির মেলা। প্রায় তিনশ’ বছরের প্রাচীন এই মেলার বিস্তৃতি ছিল থানারঘাট থেকে টিএ্যান্ডটি পর্যন্ত। বাংলাদেশ ও পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন জেলা থেকে নারীণ্ডপুরুষ, ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে হাজার হাজার মানুষ এক সময় এ মেলায় আসতো। ১৯৪৭ এ দেশভাগের পর পশ্চিমবঙ্গ থেকে অনেকেই আর আসতে পারে না।’ তারপরও কালের বিরূপ প্রতিক্রিয়া সহ্য করে আজও মেলাটি টিকে আছে। দেশভাগ, দেশত্যাগ, দাঙ্গা, হিন্দু-মুসলমান ভেদবুদ্ধি, রাজনৈতিক উত্থান-পতন কোনকিছুই মেলাটিকে বন্ধ করতে পারেনি। এখানে যারা আসেন তারা মূলতঃ মন্দিরে মানত করতে আসেন। এক সময় এ মেলা কালিমন্দির প্রাঙ্গণ থেকে টি এ্যান্ড টি অফিস পর্যন্ত বিস্তৃত ছিল। তবে ক্রমশঃ এর পরিধি ছোট হয়ে আসছে। মেলা কমিটির সম্পাদক বিশ্বনাথ সাহা বললেন, ‘মন্দিরের জমি বেদখল হয়ে যাওয়ায় মেলার পরিধি ক্রমশ সংকুচিত হয়ে যাচ্ছে। সেই সাথে এর জৌলুস হারাতে বসেছে।’ এই মন্দিরকে ঘিরে মেহেরপুরের হিন্দু মুসলমানদের মধ্যে নানা ধরণের

লেখাটি সম্পূর্ণ পড়তে বিস্তারিত সংবাদে ক্লিক করুণ লোকবিশ্বাস গড়ে উঠেছে। অনেকে বিশ্বাস করে, সিদ্ধেশ্বরী কালীমন্দিরে মানত করলে মনোবাসনা পূর্ণ হয়, দূরারোগ্য ব্যাধি থেকে মুক্তি লাভ করা যায়। বিভিন্ন সূত্র থেকে জানা গেছে, বৈশাখ সংক্রান্তি উপলক্ষে ভক্তণ্ডঅনুরাগীদের দেয়া মানতের পরিমাণ দাঁড়ায় ১০/১২ মন দুধ, বাতাসা ৪/৫ মন, ৫/৬ মন ফলমূল। এছাড়াও পাঁঠা, মুরগি, পায়রা, টাকাণ্ডপয়সা প্রভৃতিও মানত হিসেবে আসে। রোগণ্ডমুক্তির আশায় কেবল হিন্দুরা নয় মুসলমানরাও এখানে মানত করে।
ঐতিহ্যবাহী এ মেলার সেই জৌলুস আর না থাকলেও প্রায় এক সপ্তাহ ধরে এ মেলা চলে। ৩১ণ্ডবৈশাখ বৈশাখ সংক্রান্তি উপলক্ষে কালীবাড়ির সামনের সড়কের দু’ধারে দোকানিরা অস্থায়ী চালাঘর তুলে দোকান সাজায়। কোথাও বসে মিষ্টিণ্ডজিলাপিণ্ডবাতাসার দোকান, কোথাও বসে পুতুল খেলনাপাতির আবার কোথাও মনোহারী দ্রব্যের দোকান। নদীয়া, মুর্শিদাবাদ থেকে দোকানিরা না আসলেও খুলনা, বগুড়া, কুমারখালি থেকে ব্যবসায়িরা আসে। মেলাটি হিন্দু স¤প্রদায়ের পর্ব উপলক্ষে বসে, তবে এটি এখন একটি সার্বজনীন মেলায় পরিণত হয়েছে। কারণ মেলায় হিন্দুণ্ডমুসলমান, নারীণ্ডপুরুষ নির্বিশেষে সকলেই আসে। সকলের উপস্থিতিতে মেলা প্রাঙ্গণ স¤প্রীতির উৎসবে পরিণত হয়। এই মেলার বহিরঙ্গে ধর্মের ছাপ থাকলেও এর ভিতরে রয়েছে আমোদ,প্রমোদ, বিনোদন ও ব্যবসায়ের ধারা। আসলে সব লৌকিক মেলার প্রেরণার মূলে ধর্মীয় আচার অনুষঙ্গ থাকলেও এটি এক পর্যায়ে অসাম্প্রদায়িক রূপ লাভ করে। এ মেলাটিও এখন আর হিন্দু সাম্প্রদায়ের মেলা নয়, সর্ব অর্থেই সার্বজনীন মেলা। মেহেরপুরের ইতিহাস, লোকসংস্কৃতি ও ঐতিহ্যের অংশ হিসেবে বৈশাখ সংক্রান্তির মেলাটি টিকে থাকুক এ প্রত্যাশা সকলের।
লেখক: সাহিত্যিক ও লোকজ গবেষক এবং সহযোগী অধ্যাপক, মেহেরপুর সরকারী কলেজ

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.