Templates by BIGtheme NET
Home / কৃষি সমাচার / মেহেরপুরে পাম তেল উৎপাদন ।। চাষীদের মুখে হাসির ঝিলিক

মেহেরপুরে পাম তেল উৎপাদন ।। চাষীদের মুখে হাসির ঝিলিক

মাহবুবুল হক পোলেন, মেহেরপুর নিউজ ২৪ ডট কম,১৫ সেপ্টেম্বর:
মেহেরপুরে বানিজ্যিক ভাবে পাম তেল উৎপাদন ও পাম গাছের সঠিক পরিচর্যা কৃষকদের হাতে কলমে শিখিয়ে কৃষকদের এক নতুন বাংলার স্বপ্ন দেখিয়েছেন ১১ যুবক।
সবুজ গাছের তরল সোনায় বদলে দেবে বাংলাদেশ শে­াগানে গাঁ ভাষিয়ে পাম চাষ করে  কৃষকরা পরিচর্যা ও মেশিনের অভাবে দিশাহারা হয়ে পড়েছিল। চাষিদের এ মহা সংকট থেকে  কৃষিবিদ মোঃ সুরুজ শেখ ও মোঃ হাবিবুর রহমান সহ ১১  যুবক পাম চাষিদের মুখে ফিরিয়ে দিয়েছে হাসির ঝিলিক। কৃষকদের নিবিড় পরিচর্যার মাধ্যমে শিখিয়েছে কিভাবে পাম গাছের পরিচর্যা সহ সার কীটনাশক ব্যবহার। শুধুতাই নয় মেহেরপুর বিসিক শিল্প নগরিতে দেশি প্রযুক্তির মেশিন উদ্ভাবন করে শুরু করেছে পামতেলের উৎপাদন।
২০০৯ সালের শুরুতে  গ্রীন  বাংলাদেশ, বাংলাদেশ সেনাবাহীনী, ইউনিয়ন পরিষদ  ও কয়েকটি  এনজিও তেল উৎপাদন সহ সকল প্রকার সহযোগীতার আশ্বাসে মেহেরপুরে ১২০ টি পাম বাগান গড়ে উঠে। বছর খানিক পরে গ্রীন বাংলা সহ কোন প্রতিষ্ঠানই আর এসকল বাগান চাষীদের খোঁজ খবর নেয়নি। বাগান মালিকদের মধ্যে নেমে আসে হতাশা ও লোকশানের আশংকা। এমন অবস্থা দেখে ডিপে­ামা কৃষিবিদ ও ভার্মি চাষি সুরুজ ও হাবিব কৃষকদের চোখের পানি দেখে  ভাবেন কিভাবে এ সম্ভাবনাময় তরল সোনাকে কৃষকের চোখের পানি মুছিয়ে হাসির ঝিলিকে রুপান্তর করা যায়। যেই ভাবনা সেই কাজ সুরুজ ও হাবিব তার অপর ৯ সহযোদ্ধাকে সাথে নিয়ে পাম গাছের বিপ­বে ঝাপিয়ে পড়েন । তার পর আর পেছন ফিরে তাকাবার ফুসরত পায়নি তারা। পাম গাছের পরিচর্যার উপায় বের করেছেন । পাম বাগানে নিয়ে এসেছেন থোকায় থোকায় পাম ফল। আবার নিজেদের পরিকল্পনায় তৈরী করেছেন পাম থেকে তেল উৎপাদনের যন্ত্র।
কৃষিবিদ সুরুজ বলেন, ২০১২ সালে পাম গাছ নিয়ে কৃষকদের চোখের পানিকে মুখের হাসিতে কিভাবে রুপান্তর করা যায় তা ভাবতে থাকি । নেমে পড়ি পাম সম্পর্কিত তথ্য সংগ্রহে । সারাদিন বিভিন্ন ওয়েবসাইট ঘেটে পাম গাছের বিভিন্ন সুষম সার, হরমোন, ট্যাবলেট ও অন্যান্ন উপাদান  ব্যবহার সমন্ধে জানি। এরপর ফেসবুকে বিভিন্ন পাম বিশেষজ্ঞদের সাথে আলাপ করে তাদের কাছে ডলার পাঠিয়ে সেই সকল উপাদান সংগ্রহ করে একটি পাম বাগানে প্রয়োগ করে সুফল পাই । এর পর ১১ জন বন্ধু  সবার সাধ্য মতো অর্থ বিনিয়োগ করে গড়ে তুলি বোটানিকা  এগ্রো লিঃ । বোটানিকা এগ্রোর অধিনে বর্তমানে মেহেরপুর সহ চুয়াডাঙ্গা, যশোর খুলনার   ১০০ টি বাগান মালিকের সাথে চুক্তি বদ্ধ হয়ে তাদের বাগানের পরিচর্যা শুরু করি । ইতি মধ্যে ৩৫ টি বাগানে ফল পরিপক্ক হয়েছে।  কিভাবে তৈল উৎপাদন কর্ যায় তা নিয়ে ভাবতে থাকি । এর পর মালেশিয়ার ইঞ্জিনিয়ার বন্ধুর সহযোগিতায় ও দেশী ইঞ্জিনিয়ার আমজাদ হোসেন ও আবুল হাসান এর প্রচেষ্টায় মেশিন তৈরী করে স্থাপন করি।
তেল তৈরী সমন্ধে  মোঃ হাবিবুর রহমান বলেন, প্রথমে বাগান থেকে নিজেদের তত্বাবধনে ফল সংগ্রহ করে নিয়ে এসে ফল গুলি বয়লারে দিয়ে ৬০০ ডিগ্রি তাপমাত্রায়  জিবানমুক্ত করা হয় এর পর ক্রাসিং মেশিনে ক্রাসিং করে ফলের বিচি ও বাকল আলাদা করা হয় । বাকল হাইড্রোলিক পেশারে চেপে তেল তৈরি করা হয়। বিচি ভেঙ্গে পাওয়া যায় কার্ণেল ওয়েল যা সাবান সহ বিভিন্ন প্রশাধনির কাজে ব্যবহৃত হয়।
তিনি আরো জানান , ফল থেকে শতকরা ৩০ ভাগ তেল উৎপাদন হচ্ছে তবে উন্নত জাতের ভাল ফল হলে ৫০ভাগ তেল উৎপাদন করা সম্ভব। পাম চাষকে সরকার ও বিভিন্ন সংস্থার পৃষ্ঠপোষকতা করলে বাংলাদেশের অর্থনিতিতে  নতুন দিগন্তের দুয়ার খুলে যাবে। বৎসরে ৫২ হাজার কোটি টাকার তেল আমদানির পরিবর্তে শত শত কোটি টাকা আয় সম্ভব হবে এই তরল সোনা থেকে।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.