Templates by BIGtheme NET
Home / অতিথী কলাম / শবে বরাত

শবে বরাত

imagesআলহাজ্ব মাওলানা জহিরুল ইসলাম:
আল্লাহ তাআলা যাহাকে ইচ্ছা, যখন ইচ্ছা, মর্তবা ও মহাত্ম দান করেন, ফযীলত-শ্রেষ্ঠত্ব তারই হাতে। এ চিরন্তন বিধান অনুযায়ী এক ব্যক্তিকে অন্য ব্যক্তির উপর, এক ফেরেশতাকে অন্য ফেরেশতার উপর, এক নবীকে অন্য নবীর উপর, এক জনপদকে আরেক জনপদের উপর, এক পাথরকে অন্য পাথরের উপর, এক মাসকে অপর মাসের উপর, এক দিবসকে অপর দিবসের উপর, এক মূহুর্তকে অন্য মূহুর্তের উপর, এক রজনীকে অন্য রজনীর উপর তিনি শ্রেষ্ঠত্ব দান করিয়াছেন। রমযান মাস সকল মাসের মধ্যে শ্রেষ্ঠ। জুম’আর দিন অন্যান্য দিনের তুলনায় শ্রেষ্ঠ। অনুরূপভাবে শবে-কদর, শবে-ঈদাইন, শবে-জুম’আ রাত, শবে-বরাতের মর্যাদা অন্যান্য রাত্রির তুলনায় অনেক গুন বেশি।
শবে বরাত : শবে বরাতও এ শাবান মাসেই যা অত্যন্ত বরকতপূর্ণ ও ফযীলতের রাত। শাবানের ১৫ তারিখের রাত, যা ১৪ তারিখ দিনের সূর্য অস্ত যাওয়ার পর হতে শুরু হয়ে ১৫ তারিখ সুবেহ সাদিক অর্থাৎ ফজরের নামাযের ওয়াক্ত শুরু হওয়ার সময় শেষ হয়।
শবে বরাতের নাম করণ : হাদীস শরীফে এ রাতের বিশেষ কোন নাম বর্ণিত হয়নি। বরং “লাইলাতুন নিছফি মিন শাবান” অর্থাৎ “শাবানের ১৫তম রজনী”-শব্দে উল্লেখিত হয়ে এ রাতের ফযীলত বর্ণিত হয়েছে। শবে বরাত এটা ফারসী শব্দ, যা ‘শব’  এবং ‘বারাআত’ দুটি শব্দে মিলে গঠিত হয়েছে। শব শব্দের অর্থ হলো রাত এবং বারাআত শব্দের অর্থ হলো নাজাত, মুক্তি, রক্ষা, রেহাই ইত্যাদি। এ রাতে যেহেতু অসংখ্য গোনাহগারের গোনাহ মাফ হয় এবং অসংখ্য অপরাধীর অপরাধ ক্ষমা করা হয়, সেহেতু এ রাত মুসলমানদের মাঝে ‘শবে বরাত’ বলে প্রসিদ্ধ হয়েছে।
শবে বরাতের ফযীলত : হাদিস শরীফে এ রাতের অনেক ফযীলত বর্ণিত হয়েছে। সে সকল ফযীলত হতে কিছু অংশ অত্যন্ত সংক্ষিপ্ত আকারে নিম্মে পেশ করা হলো।
হাদীস শরীফে আছে : হযরত মুআয ইবনে জাবাল (রাযি) বর্ণনা করেন, রাসুলে কারীম সাল্লাল্লাহু  আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন, ১৫ শাবানের রাতে আল্লাহ পাক তার সকল সৃষ্টির প্রতি বিশেষভাবে মুতাওয়াজুহ হন এবং সমস্ত মাখলুককে ক্ষমা করে দেন কিন্তু মুশরিক এবং বিদ্বেষীদেরকে মাফ করেন না। (সহীহ ইবনে হিব্বান ১৩/৩৮১ হাদীস নং ৫৬৬৫, শুআবুল ঈমান ৩/৩৮২ হাদীস নং ৩৮৩৩, কিতাবুল সুন্নাহ, মাওয়ারেদুয্ যম্য়ান,  মু’জামূল কাবীর, মাজমাউয যাওয়ায়েদ ৮/৬৫, আত তারগীব ওয়াত তারহীব ২/১১৮  ইত্যাদি  ) হাদীসটির সনদ সহীহ এই জন্য ইমাম ইবনে হিব্বান “সহীহ ইবনে হিব্বানে” হাদীসটি বর্ণনা করেছেন, শায়খ নাসিরুদ্দীন আলবাণী উল্লেখীত হাদীসটি সহিহ তারহীব ও ছিলছিলাতুল আহাদীসুস সহীহা গ্রন্থে উল্লেখ করেছেন এবং হাদীসটিকে সহীহ বলেছেন। শবে বরাতের ফযীলতের ব্যাপারে যদি আরকোন হাদীস নাও থাকত তারপরও উল্লেখিত হাদীসটি এরাতের ফযীলত সাব্যস্ত হওয়ার জন্য যথেষ্ট।
অন্য এক হাদীসে আছে : হযরত আবু ছা’লাবাহ (রাযি.) বর্ণনা করেন, রাসূলে কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন- শাবানের ১৫ তারিখের রাতে আল্লাহ পাক স্বীয় বান্দাদের দিকে মুতাওয়াজ্জুহ হয়ে মুমিনদেরকে মাফ করে দেন এবং বিদ্বেষীদেরকে স্বীয় বিদ্বেষের মধ্যে ছেড়ে দেন। অর্থাৎ তাদেরকে মাফ করেন না। যতক্ষণ না তারা স্বীয় বিদ্বেষ ত্যাগ করে দোয়া করে। (কিতাবুস সুন্নাহ, বায়হাকী, শুআবুল ঈমান, দুররুল মানছুর)।
উপরে বর্ণীত হাদীসে উল্লেখিত দুটি গোনাহসহ কোন কবীরা গোনাহ মাফ হওয়ার জন্য তওবা শর্ত। শবে বরাতের রাত্রিযেহেতু ক্ষমার রাত্রি তাই বেশি থেকে বেশি তওবা, এস্তেগফার,কোরআন তেলাওয়াত, দরুদশরীফ পাঠ সহ নিম্মে উল্লেখিত আমল সমূহ একাগ্রতার সাথে করা প্রয়োজন।

শবে বরাতের আমল বা করণীয়:
১। রাত্রে ইবাদত করা আর দিনের বেলায় রোযা রাখা : হয়রত আলী ইবনে আবু তালেব (রাযি.) থেকে বর্ণিত, রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, “১৫ শাবানের রাত (১৪ তারিখ দিবাগত রাত) যখন আসে তখন তোমরা এ রাতটি ইবাদত-বন্দেগীতে কাটাও এবং দিনের বেলা রোযা রাখ। কেননা, এ রাতে সূর্যাস্তের পর আল্লাহ তাআলা প্রথম আসমানে আসেন এবং বলেন, কোন ক্ষমাপ্রার্থী আছে কি? আমি তাকে ক্ষমা করব। আছে কি কোন রিযিক প্রার্থী? আমি তাকে রিযিক দিব। আছে কোন অসুস্থ বা বিপদ গ্রস্থ ব্যক্তি? যাকে আমি সুস্থতা দান করব ও বালা মুসিবত থেকে মুক্তি দেব। এভাবে সুবহে সাদিক পর্যন্ত আল্লাহ তাআলা মানুষের প্রয়োজনের কথা বলে তাদের ডাকতে থাকেন।” (সুনানে ইবনে মাজা, হাদীস ১৩৮৪)
২। এ রাতে কবরস্থানে যাওয়া : হযরত আয়েশা সিদ্দীকা (রাযি.) বলেন, এক রাত্রে আমি রাসূলে কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামকে আমার নিকট না পেয়ে তাঁর খোঁজে বের হলাম। জান্নাতুল বাকীতে তাঁকে পেলাম। তিনি বললেন- হে আয়েশা! তুমি কি আশংকা করছ যে, আল্লাহ এবং তাঁর রসুল তোমার প্রতি কোন অত্যাচার করবেন? আমি বললাম, হে আল্লাহর রাসূল ! আমার এ ধারণা হয়েছিল যে, আপনি হয়তো অন্য কোন স্ত্রীর কাছে গমন করেছেন। এরপর রাসূলে কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন: ১৫ শাবানের রাতে আল্লাহ পাক দুনিয়ার নিকটবর্তী আসমানে অবতরণ করেন এবং বনু কালব গোত্রের লোকদের ছাগল পালের পশমের সংখ্যার চেয়েও অধিক সংখ্যক লোককে ক্ষমা করে দেন। (তিরমিযী, ইববে মাজাহ, জামেউল উসূল)
৩। এই রাত্রে খুব দো’য়া করা : হাদীস শরীফে আছে, হযরত উসমান ইবনে আবিল আস (রাযি.) বর্ণনা করেন- রাসূলে কারীম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ইরশাদ করেন, শাবানের ১৫ তারিখের রাতে আল্লাহ পাকের পক্ষ থেকে একজন ঘোষনাকারী ঘোষনা করেন- আছে কি কোন ক্ষমা প্রার্থনাকারী? যাকে আমি ক্ষমা করে দেব। আছে কি কোন প্রার্থনাকারী ? যার মনোবাসনা আমি পূর্ণ করে দেব। (সুতরাং এই রাতে সকল প্রার্থনাকারীর মনো বাঞ্ছনা পূর্ণ করা হয়। কিন্তু ব্যভিচারী ও মুশরিকের দোয়া কবুল করা হয়না। (দূররুল মানছুর, শুআবুল ঈমান, লাতায়েফ, কুনুয)
শবে বরাতের বর্জনীয় বিষয় সমূহ ঃ করণীয় আমলের সহিত কতকগুলি বর্জনীয় বিষয় জড়িত থাকে। সেই সব বিষয় বর্জন না করলে শবে বরাতের বরকত হতে বঞ্চিত হয়। সফলতার পরিবর্তে ব্যর্থতা; রহমতের পরিবর্তে গজব, সাওয়াবের পরিবর্তে আযাবই নসীব হয়। কিন্তু পরিতাপের বিষয় যে, আমরা ওইসব বিষয়ে উদাসীন থাকি। ওই কাজ বর্জনের প্রতি যতটুকু গুরুত্ব আরোপের প্রয়োজন, ততটুকু গুরুত্ব আরোপ করা হয়না। বর্জনীয় কাজগুলির সংক্ষিপ্ত তালিকা নিম্মে পেশ করা হলো।
১। হালুয়া রুটির বিশেষ আয়োজন করা। ২। আতশবাজি, পটকা ইত্যাদি ফুটানো। ৩। মসজিদ, কবরস্থান ও অন্যান্য ইমারতে আলোকসজ্জা করা। ৪। গোরস্থানে মেলা ও উৎসব করা। ৫। মসজিদ কমিটি বা মহল্লার যুবক ছেলেদের উদ্যোগে চাঁদা আদায় পূর্বক তবারক বিতরন করা। ৬। ইবাদতে একাগ্রতার প্রতি নজর না দিয়ে বাহ্যিক জাগজমকের দ্বারা অনুষ্ঠান সর্বস্বে পরিণত করা।
উপসংহার ঃ এতদিন পর্যন্ত শবে বরাতকে কেন্দ্র করে একশ্রেণির মানুষ বাড়াবাড়িতে লিপ্ত ছিল। তারা এ রাতটি উপলক্ষে নানা অনুচিত কাজকর্ম এবং রসম-রেওয়াজের অনুগামী হচ্ছিল। উলামায়ে কেরাম সব সময়ই এসবের প্রতিবাদ করেছেন এবং এখনো করছেন। ইদানিং আবার এক শ্রেণির মানুষের মধ্যে ছাড়াছাড়ির প্রবণতা দেখা দিয়েছে। বাস্তব কথা হলো- আগেকার সেই বাড়াবাড়ির পথটিও যেমন সঠিক ছিলনা। এখনকার এই ছাড়াছাড়ির মতটিও শুদ্ধ নয়। শবে বরাতের ব্যাপারে সঠিক ও ভারসাম্যপূর্ণ অবস্থান হলো- এরাতের ফযীলত সহীহ হাদীস দ্বারা প্রমানিত। শবে বরাত হলো ইবাদত বন্দেগী ও দু’য়া-ক্রন্দনের রাত। কিন্তু দূর্ভাগ্যজনকভাবে আমরা একে খাওয়া-দাওয়া ও উৎসবের রাত বানিয়ে ফেলিয়েছি। অনেকে শবে বরাতের রাত্রে কমবেশি নামাজ পড়েন। কিন্তু ফজরের নামাজ জামায়াতে পড়েন না। এর চেয়ে কঠিন আত্মপ্রবঞ্চনা আর কিছুই হতে পারেনা। সারা জীবনের সকল নফল এবাদতও একটি ফরজ এবাদতের সমান হতে পারেনা। তাই ফরজ ও নফলের সীমারেখা অনুধাবন করা প্রত্যেকের জন্য অত্যন্ত জরুরী। আল্লাহ তাআলা আমাদেরকে শরীয়তের সীমারেখা মেনে চলার তাওফিক দান করুন। ( আমীন )

লেখক:প্রভাষক, মেহেরপুর আলিয়া মাদ্রাসা

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.