Templates by BIGtheme NET
Home / অতিথী কলাম / সত্যের প্রকাশ

সত্যের প্রকাশ

pppখায়রুল আনাম খান:

রেবতী মোহনকে আজ বিশেষভাবে মনে পড়ছে। তিনি হাতিয়া উপজেলার চর ঈশ্বর ইউনিয়নের রাজার হাওলাগ্রামের স্থায়ী বাসিন্দা হিসাবে স্থায়ীভাবে বসবাস করে আসছেন।তিনি রাজারহাওলা সরকারী প্রাইমারী স্কুলের একজন সহকারী শিক্ষক এবং আজও একই দায়িত্বে থেকে দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন।তিনি তার পেশার দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি নানাবিধ সামাজিক সেবা কার্যক্রমে নিজেকে জড়িয়ে রাখেন। তার সেবামূলক কার্যক্রমের মধ্যে অন্যতম হ’ল তিনি নিজ গ্রামের ঘুর্ণিঝড় প্রস্তুতি কার্যক্রমের একজন ইউনিট টিম লীডার হিসেবে নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করে চলেছেন। স্বভাবে অমায়িক, বন্ধুসুলভ ও পরোপকারী হওয়ায় এলাকায় তার বেশ সুনাম ও সুখ্যাতি রয়েছে। আমার সাথে তার পরিচয়ের সূত্র ছিল একান্তই রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির অফিসিয়াল কার্যক্রম বাস্তবায়নকে কেন্দ্র করে।

আমি ১৯৮৭ সাল থেকে ১৯৯৪ সালের অক্টোবর পর্যন্ত হাতিয়া দ্বীপে বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি দুর্যোগ মোকাবেলার কার্যক্রমে আওতায় আশ্রয় কেন্দ্র নির্মাণ এবং তৎসংলগ্ন ১.৫ কিঃমিঃ এলাকায় দুর্যোগ ঝুঁকিহ্রাস প্রকল্প বাস্তবায়নের দায়িত্বে নিয়োজিত ছিলাম। রেবতী মোহন (পরে তাকে রেবতি মাষ্টার বলে ডাকতাম)তার নিজ এলাকা রাজার হাওলায় বিপদাপন্ন মানুষের জন্য একটি আশ্রয় কেন্দ্রে নির্মাণ এবং ঝুঁকিহ্রাস কার্যক্রমটি বাস্তবায়নের অনুরোধ জানালে, আমরা তার প্রস্তাবে সাঁড়া দিয়ে কার্যক্রম বাস্তবায়নের প্রক্রিয়া শুরু করি। আমার অফিসে তিনি আশ্রয় কেন্দ্রে নির্মাণ এবং ঝুঁকিহ্রাস কার্যক্রমের বিষয়ে বেশ কয়েকবার আলোচনার জন্য এসেছিলেন।প্রথম দিনটিতেই তার অমায়িক ব্যবহার এবং আশ্রয় কেন্দ্রে নির্মাণের প্রস্তাবনার যৌক্তিকতা, আমাকে প্রকল্পটি গ্রহণে উৎসাহিত করেছিল। সেই থেকে তার সাথে জানাশুনার ক্ষেত্রটি আরও ব্যাপকতা পায় এবং এক পর্যায়ে আনুষ্ঠানিক সম্পর্ক ডিঙ্গিয়ে আমরা পরস্পরের বন্ধু হয়ে উঠি। কারণে অকারণে আমি এবং আমার সহকর্মিরা এবং তিনি নিজে তার বাড়ীতে ও অফিসে যাতায়াত শুরু করতে থাকি। এমন একটা সময় ছিল যে, একটি দিন পরস্পরের সাথে সাক্ষাত না হলে মনে হত যেন অনেকদিন আমাদের দেখা হয়নি।

আমার এ লেখার অবতারণায় রেবতী মোহন কে নিয়ে এত কথালেখার এক বিশেষ প্রাসাংগিকতা রয়েছে। এর/ছাড়াআমার এই স্মৃতিচারণ “আন্তর্জাতিক দুর্যোগ প্রশমন দিবস”-২০১৫ এর প্রতিপাদ্য বিষয়“Knowledge for Life” বা জ্ঞানই জীবন এই বিষয়বস্তুর সাথে সংঙ্গতি রেখে আমার এই লেখার প্রয়াস যা দিবসের প্রতিপাদ্য বিষয়ের অন্তর্নিহিত Sprit কে তুলে ধরতে ক্ষাণিকটা হলেও সহায়ক হবে। । তাই পাঠকগণকে একটু ধৈর্য্য সহকারে লেখাটি পড়ার অনুরোধ জানাচ্ছি যাতে ঘটনার সত্যতার নিষ্সরণ থেকে আমাদের মানবিকতার বিকাশ ঘটাতে সক্ষম হবে।
হ্যাঁ, লেখাটা শুরু করছি আমার লেখার প্রথম নায়ক রেবতী মোহনকে নিয়ে। ঘটনাক্রমে ১২ নভেম্বর ১৯৭০ সনের প্রলয়ংকরী ঘুর্ণিঝড়ের কারণে তার পরিবার ও নিকট আত্মীয়রা নিপতিত হয়েছিলেন। সে সময় তার নিকট আত্মীয় সহ রাজার হাওলা এলাকায় শত শত মানুষ মারা যায়। যারা প্রাণে বেঁচে গিয়েছিলেন তারাও পরবর্তিতে মহামারিতে আক্রান্ত হয় এবং আরও অগণিত মানুষ পরবর্তী এক মাসের মধ্যে মৃত্যু বরণ করে।
এই বাস্তব অভিজ্ঞতাকে ধারণ করে তিনি নিজের জীবন ধারার ব্যাপক পরিবর্তন ঘটিয়েছেন। এ ক্ষেত্রে তার লব্ধ জ্ঞান ও ধারণার, শুধু যে তিনি সিপিপি সদস্যদের মাঝে প্রসারতা ঘটাতে কাজ করে যাচ্ছেন এমন নয়, এই ধারণা তিনি নিজ সমাজেও বিস্তার ঘটাতে কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি তার পেশাগত জীবনেওঅর্থাৎ, স্কুলে পাঠদানের সময় কোমলমতি ছেলে মেয়েদের মাঝেও বিস্তার ঘটানোর প্রয়াস চালাচ্ছেন। তিনি সব সময় সবাইকে ফলজ ও কাঠ জাতীয় গাছ লাগাতে উদ্ভুদ্ধ করেন। বিশেষ করে শিশুরা- যারা আমাদের ভবিষ্যত প্রজন্ম, তাদের এর সুফল ও কুফল সম্পর্কে বলতেন এবং বাড়ী বাড়ী গিয়ে গাছ লাগানোর তদারকি করতেন। বৃক্ষ রোপনতার জীবনে একটি অন্যতম দর্শন হিসেবে কাজ করছিল।

আমার দেখামতে ওছখালী বাজারে এমনকি আমার অফিসে যতবারই তার সাথে সাক্ষাত হয়েছে ততবারই আমি তার হাতে ফলজ ও কাঠালী জাতের চারা গাছ দেখেছি। জিজ্ঞাস করলে হাঁসতে হাঁসতে বলতেন,“এটা আমার সুইস ব্যাংক এবং বিপদের বন্ধু“। কারণ জিজ্ঞাস করতেই অকপটে বলতে থাকতেন“আমার ২ টি মেয়ে ও ১ টি ছেলে আছে। আমি তাদের জন্মদিনে অর্থাৎ মেয়েদের বেলায় প্রত্যেকের জন্য ১০ টি ফলজ, ১০ টি বনজ গাছের চারা এবং ছেলের বেলায় তিনি ৪০ টি ফলজ ও কাঠালী জাতের চারা রোপন করি। এই গাছ গুলিই ছেলে মেয়েদের ভবিষ্যৎ সম্পদ। যখন এরা বড় হবে অর্থাৎ ২৪ বছরে পড়বে তখন গাছের বয়সও হবে ২৪ বছর। এ গাছ গুলিই আমার ছেলে মেয়েদের উচ্চ শিক্ষা সহ তাদের ভবিষৎ বিয়েতে আর্থিক সহায়তা হিসেবে কাজ করবে। এ বিষয়ে আমাকে বিন্দু বিসর্গ চিন্তা ভাবনা বা আর্থিক সংস্থানে ব্যস্ত হতে হবে না। দ্বিতীয় কারণ হল রোপিত ফলজ গাছের ফল বাড়িতে ছেলে/ মেয়েরাই খাবে, ফলে তাদের দৈহিক গড়নে প্রয়োজনীয় পুষ্টির অভাব কোনদিন হবে না। তৃতীয়তঃগাছ রোপন করা পরিবেশ বান্ধবএকটি বিষয়। প্রাকৃতিক ভাবেই এই গাছ আমাদের যেমন বাচার জন্য অক্সিজেন দিয়ে থাকে, পাশাপাশি গাছ কার্বনডাই অক্সসাইড গ্রহণ করে পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করে আমাদের দৈহিক ভাবে সুস্থ্য থাকতে সহায়তা করে। শুধু কি তাই, গাছের পাতা ও ছাটা ডাল আমার জ্বালানী কাজে সহায়তা করে অর্থ বাঁচিয়েআসছে“।তিনি গাছ লাগানোর কারণ ব্যাখ্যা করতে গিয়ে মুল কারণ হিসাবে যে ব্যাখ্যাটি সর্বাগ্রে এবং সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে নিশ্চিত করেছেন তা হ’ল, গাছ রোপনের দ্বারা তিনি নিজের বাড়ীটিকে একটি প্রকৃতিক বেষ্টনির মধ্যে আবদ্ধ করেছেন, ফলে প্রাকৃতিক যে কোন দুর্যোগে তার বাড়িটি সব সময়ই সুরক্ষিত থাকবে।আমি এতকিছু বিশ্বাস করতামনা তবে রেবতির কথা শুনছিলাম মন্ত্রমুগ্ধ হয়ে।তিনি বলেই চলছেন,“আমি এই শিক্ষা পেয়েছি ১৯৭০ সালের ঘুর্ণিঝড়ের ধ্বংসলিলা থেকে। সেই সময় অনেক বাড়ী ঘর ও সম্পদ রক্ষা পেয়েছিল কেবলমাত্র প্রাকৃতিক গাছপালার বেষ্টনী কারণে“। আমি সব সময়তাকে বিশ্বাস ও শ্রদ্ধা করতাম। তার কথা শুনে ভাবতে লাগলাম, আমরা কেন তারমত করে চিন্তা ভাবনা করতে পারি না। কৌতুহল বশতঃ একদিন তার বাড়ীতে গিয়ে উপস্থিত হই এই কারণে যে, কিভাবে তিনি গাছপালার পরিচর্যা করে থাকেন – তা দেখবো। আমার কৌতুহল ২০০% বেড়ে গেল যখন দেখলাম পড়ন্ত বিকেলে তার বাড়ীর প্রবেশ পথে তিনি গাছ লাগাচ্ছেন। মটর সাইকেল থেকে নেমে তার সাথে বসে জিজ্ঞাস করলাম এ বিকেলে গাছ লাগাচ্ছেন কেন? উত্তরে জানালেন, প্রড়ন্ত বেলায় মাটি ও আবহাওয়া শীতল থাকে। এই সময়টাই গাছের জন্য বিশেষ সহায়ক। তাছাড়া অধিকাংশ সময়ইতো স্কুল বা সামাজিক কাজে ব্যস্ত থাকতে হয় বিধায় আমার জন্য এটাই উপযুক্তসময়। জিজ্ঞাস করলাম আজ কার জন্য এই গাছ লাগাচ্ছেন। উত্তরে বললেন, আমার ছোট মেয়ের জন্য। কারণ আজ তার জন্মদিন। আমি প্রত্যেক সন্তানদের জন্মদিনে ১০ টি করে গাছ লাগাই। এটাই হবে তাদের জন্য আমার শ্রেষ্ঠ উপহার। ছোট মেয়ের জন্মদিনের কথাটা শুনে ভীষণ লজ্জ্বায় পড়ে গেলাম। পকেট থেকে ২০০ টাকা বের করে বললাম আমি তো জানতাম না, তাকে কিছু একটা কিনে দিবেন। রেবতী টাকাটা গ্রহণ না করে বলল, আপনার সৌজন্যের জন্য আন্তরিক ধন্যবাদ, তবে আমি বেশি খুশি হব যদি, আপনার এই স্নেহ ভালবাসার নিদর্শন স্বরূপতাকে ০১ টি চারা গাছ উপহার দেন। এই উপহারই ভবিষ্যৎতে তাকে অনেক বড় উপহারে ভরিয়ে দিবে।

এরপর রেবতিতার রোপিত গাছ গুলি আমাকে দেখাতে লাগলেন।আমিও তার সাথে গাছগুলি দেখছিলাম এবং অবাক হয়ে তার কথা শুনছিলাম। এক পর্যায়ে আমাকে অনুরোধ জানালো কাল একটি সামাজিক বৃক্ষরোপন কর্মসূচী আছে। যেখানে স্কুলের প্রতিটি ছেলে মেয়ে, সিপিপি ২ টি ইউনিটের ৩০ জন স্বেচ্ছাসেবক ও স্থানীয় কিছু গন্যমান্য ব্যক্তি দ্বারা ২ কিঃমিঃ রাস্তার উভয় পার্শ্বে ফলজ ও বনজ গাছ লাগানোর অনুষ্ঠানে শরিক হতে। আমার পূর্ব নির্ধারিত কাজ থাকায় আমার অপারগতা কথা তাকে জানালাম এবং বিদায় নিয়ে চলে এলাম। আমি যখনই রেবতীকে নিয়ে ভাবি তখনই মনে হয়, মানুষ কি-না পারে। আমরা যেমন মানুষ মারার জন্য ভয়ংকর অস্ত্র তৈরী করেছি, তেমনিই রেবতীর মত সাদা মনের মানুষেরা সমাজের অন্যান্য মানুষ বিশেষ করে সমাজেরভবিষ্যৎ প্রজন্মকে নিরাপত্তা প্রদানের জন্য অগনিত, অসংখ্য কাজ করে যাচ্ছেন।যুগে যুগে তাদের জ্ঞানই নানা বিপদ বিপর্যয় থেকে আমাদের রক্ষা করে চলছে। কিন্তু, আমরা কি পেরেছি তাদের যথাযথ সম্মান জানাতে? কখনও কি ভেবেছি, তাদের ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র জ্ঞানের আধারেই আমাদের জীবনের অস্তিত্ব। তাই আমার অন্তর থেকে সেলিউটসকল রেবতীগণ কেযারা আমাদের ভবিষৎ বংশধরদের জন্য এই পৃথিবিটা গড়ে যাচ্ছেন।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.

ăn dặm kiểu NhậtResponsive WordPress Themenhà cấp 4 nông thônthời trang trẻ emgiày cao gótshop giày nữdownload wordpress pluginsmẫu biệt thự đẹpepichouseáo sơ mi nữhouse beautiful