Templates by BIGtheme NET
Home / বিশেষ প্রতিবেদন / সাত তরুণের ‍”শিক্ষাতরী”

সাত তরুণের ‍”শিক্ষাতরী”

Meherpur Voluntear Teacher Pic-4৪৪৪৪মেহেরপুর নিউজ,১০ অক্টোবর:
মেহেরপুর জেলা শহর থেকে ১২ কিলোমিটার পূর্বে খোকসা গ্রামের অবস্থান। জেলার অন্যান্য গ্রামের তুলনায় শিক্ষা দীক্ষায় পিছিয়ে পড়া একটি গ্রাম। বাল্য বিবাহ, শিশু শ্রম , অভিভবাবকদের মধ্যে সচেতনতার অভাব, নানা কারণে এলাকার শিক্ষার হারও তুলনামুলক কম। এসকল সমস্যা থেকে উত্তরণের উপায় শিক্ষার মান বৃদ্ধি । গ্রামের সরকারী বিদ্যালয়ে প্রয়োজনীয় সংখ্যাক শিক্ষক না থাকায় তাদের সহযোগীতা করার জন্য শিক্ষার মান উন্নয়নে স্বেচ্ছাশ্রমে গ্রামের ৭ তরুণ ফাঁকা সময়গুলোতে পাঠ দান করাচ্ছেন। সূত্র: কালের কন্ঠ
ওসমান গণি নয়ন, আবু সাঈদ, মামুনুর রশিদ, তোফাজ্জেল হোসেন, ইমরান হোসেন, মনিরুজ্জামান, আসিফ ইকবাল। মেহেরপুর সদরের খোকসা গ্রামের ৭ শিক্ষিত তরুণ এরা। এদের মধ্যে নয়ন ও সাঈদ কুষ্টিয়া সরকারী কলেজের সম্মান ২য় বর্ষের ছাত্র, মামুনুর রশিদ ও তোফাজ্জেল মেহেরপুর সরকারী কলেজের সম্মান ১ম বর্ষের ছাত্র বাকি ৩জন এইচএসসি পাশ করে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার অপেক্ষায়।
পিছিয়ে পড়া গ্রামটির ছেলেমেয়েদের শিক্ষার প্রতি মনোযোগ, অভিভাবকদের সচেতনতা ও শিক্ষার্থী ঝরে পড়া রোধে তারা স্বেচ্ছাশ্রমের মাধ্যমে গ্রামের সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষকদের পাশাপাশি ফাঁকা ক্লাসগুলোতে ¯ে^চ্ছাশ্রমে পাঠদান করার কাজে নিয়োজিত হয়েছে ওই ৭ তরুণ। পাশাপাশি সকালে ৪র্থ ও ৫ম শ্রেনীর ফ্রি কোচিং ও স্কুলের অবসর সময়ে শিক্ষার্থীদের বাড়ি বাড়ি যেয়ে লেখাপড়ার খোজ নিয়ে শিক্ষার্থী মনোযোগী করে তোলার নিরন্তর চেষ্টা করে চলেছে তারা।
সরেজমিনে সোমবার সকালে বিদ্যালয়ে যেয়ে দেখা যায় শিক্ষকদের পাশাপশি ফাঁকা ক্লাসগুলোতে ওদের দু’জন দুটি শ্রেণী কক্ষে পাঠ দান করাচ্ছেন ।
তাদের পাঠদানের কারণে গ্রামটিতে নতুন করে আশার আলো জেগে উঠেছে। বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাও লেখাপড়ায় মনোযোগী হয়ে উঠেছে জানায় শিক্ষার্থী ও তাদের অভিভাবকরা।
খোকসা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৫ম শ্রেণীর ছাত্রী উম্মে কুলসুম জানায়, আমাদের স্কুলে স্যার ম্যাডাম কম থাকায় ঠিকমতো ক্লাস হতো না। নয়ন স্যার, সাইদ স্যার রা ক্লাস নেয়ার পর থেকে আমরা মনোযোগী হয়ে উঠেছি। এখণ সব ক্লাস হয়। সকালে আমাদের ফ্রি কোচিং করানো হয়। আমি আশাকরি প্রাথমিক সমাপনীতে জিপিএ ৫ পাবো।
অভিভাবক হিরাজান নেছা বলেন, তার দুই মেয়ে এ বিদ্যালয়ে লেখাপড়া করে। বড় মেয়ে সালমা খাতুন ৪র্থ শ্রেনীতে এবং ছোট মেয়ে সাবরিনা পড়ে ১ম শ্রেণীতে। তিনি বলেন, আগে বাড়িতে প্রাইভেট শিক্ষক দিয়ে তাদের লেখাপড়া করাতে হতো। তারপরও তারা লেখাপড়া করতে চাইতো না। নতুন করে মাস খানেক ধরে গ্রামের ছেলেরা বিনা বেতনে বিদ্যালয়ে ক্লাস নিচ্ছে এবং বাড়িতে বাড়িতে খোজ নিচ্ছে। ফলে তার মেয়ের মত গ্রামের অন্য ছেলে মেয়েরাও লেখাপড়া করতে আগ্রহী হচ্ছে।
বিদ্যালয়ে শিশু শ্রেনী সহ ৫ম শ্রেণী পর্যন্ত ২৯৫ ছাত্রছাত্রী রয়েছে। এর মধ্যে শিশু শ্রেণীতে ২৩জন , ১ম শ্রেণীতে ৫৮ জন, ২য় শ্রেণীতে ৩৯জন, ৩য় শ্রেণীতে ৫৭জন, ৪র্থ শ্রেণীতে ৬৫ জন এবং ৫ম শ্রেণীতে ৫৩ জন। প্রধান শিক্ষকসহ ৮জন শিক্ষকের বিপরীতে আছে সহকারী ৫জন। ভারপ্রাপ্ত দিয়ে চলছে প্রধান শিক্ষকের পদ। ২০১৪ সালে বিদ্যালয় থেকে ৪৩ জন সমাপনী পরীক্ষায় অংশ নিয়ে সকলেই পাশসহ ২জন জিপিএ ৫ পেয়েছে।
বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক শিরিনা খাতুন বলেন, ৫ জন শিক্ষক দিয়ে নিয়মিত ক্লাস করানো খুবই সমস্যা হচ্ছিলো।এছাড়া অফিসের কাজে তাকে মাঝে মাঝে জেলা সদরে যেতে হয়। সমস্যার কারণে দু’একজন শিক্ষক মাঝে মধ্যে ছুটিতেও থাকে। অল্প সংখ্যাক শিক্ষক নিয়ে গ্রামের শিক্ষার্থীদের মনোযোগী করে তোলা যাচ্ছিলো না। ¯ে^চ্ছাশ্রমে এ সকল তরুণরা পাঠদান করাতে চাইলে শিক্ষক, ম্যানেজিং কমিটি, স্থানীয় অভিভাবকদের সাথে আলোচনা করে উপজেলা সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা অফিসারের অনুমতিতে ৭ তরুণকে স্বেচ্ছাসেবক শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়। ওরা পাঠদান করানোর পর থেকে বিদ্যালয়ে সকল কিছুতে আমূল পরিবর্তন শুরু হয়েছে। আশা করছি এবছর সমাপণীতে উল্লেখযোগ্য ফলাফল হবে বিদ্যালয়ের।
জেলার পিছিয়ে পড়া গ্রামগুলোর একটি খোকসা । এর আগে বাল্যবিবাহ সহ নানা কারণে শিক্ষার্থী ঝরে পড়ার ঘটনা রয়েছে। এছাড়াও ছেলেমেয়েদের মধ্যে লেখাপড়া নিয়ে কেমন একটা উদাসিনতা ভাব। অভিভাবকদের মধ্যে সচেতনতার অভাব। নানা সমস্যায় জর্জরিত গ্রামটিকে এগিয়ে নিতে দরকার প্রাথমিক শিক্ষার উন্নয়ন বলে মনে করেণ বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি হাফিজুর রহমান। তিনি বলেন, এলাকার অভিভাবক, শিক্ষক ও তরুণ শিক্ষিত ছেলেমেয়েদের সাথে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেয়া হয় স্বেচ্ছাশ্রমে শিক্ষক নিয়োগের। এরপরে স্বেচ্ছাশ্রমে পাঠদান করানোর জন্য এই ৭ তরুণ এগিয়ে আসে। তারা সেপ্টেম্বরের ৩ তারিখ থেকে পাঠদান করে আসছে। এক মাসে তারা শিক্ষার মান উন্নয়নে নানা উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। এর মধ্যে সকালে ৪র্থ ও ৫ম শ্রেণীর ছাত্রছাত্রীদের ফ্রি কোর্চি করাচ্ছে। স্কুল শেষে যার যার মত করে গ্রামের বিভিন্ন শিক্ষার্থীদের বাড়িতে বাড়িতে যেয়ে খোজ খবর নিচ্ছে।
সভাপতি হাফিজুর রহমান আরো বলেন, এলাকার অভিভাবকদের মধ্যে সচেতনতার লক্ষ্যে অভিভাবক সমাবেশ, মা সমাবেশের মাধ্যমে গ্রামটিকে শিক্ষা দীক্ষায় এগিয়ে নিতে চেষ্টা করে যাচ্ছে।
৭ স্বেছাসেবক শিক্ষকের মূল উদ্যোক্তা ওসমান গণি নয়ন ও আবু সাঈদ। তারা অভিন্ন ভাষায় বলেন, দিন দিন গ্রামটিতে শিক্ষার হার কমে যাচ্ছে। ছেলেমেয়েরা বিদ্যালয়ে না এসে এদিকে ওদিকে খেলাধুলা করছে। বেসিক কোনো কিছু জিজ্ঞাসা করলে উত্তর দিতে পারে না। নানা প্রশ্ন করবো ভেবে অনেকে ভয়ে আমাদের কাছে আসে না। তাছাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়টি প্রয়োজনীয় সংখ্যাক শিক্ষক নাই। এ ধরনের নানা কারণে আমরা গ্রামের এই ৭ জন একত্রে বিদ্যালয়ে ¯ে^চ্ছাশ্রমের মাধ্যমে পাঠদানের সিদ্ধান্ত নিই। পরে বিষয়টি স্কুলের প্রধান শিক্ষক, ম্যানেজিং কমিটিকে জানালে তারা আলোচনা করে আমাদের পাঠদান করাণোর অনুমতি দেন। তারা বলেন, আমাদের দেখাদেখি গ্রামের আরো তরুণরা স্বেচ্ছায় পাঠদান করাণোর জন্য এগিয়ে আসছে। লেখাপড়ার কারণে আমরা যখন থাকতে পারবো না, আশা করি তখন আমাদের মতো অনেকেই এখানে পাঠদান করাবে। এভাবেই জেলার একটি শ্রেষ্ট শিক্ষার গ্রাম হিসেবে খোকসাকে মেহেরপুরবাসীর কাছে তুলে ধরবেন তারা এ স্বপ্ন দেখছেন।
অত্র ক্লাস্টারের সহকারী উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার ফিরোজুল ইসলাম বলেন, বিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীদের শিক্ষার মান উন্নয়নে ও ভালো ফলাফলের লক্ষ্যে ৭ তরুণ স্বেচ্ছাশ্রমে ক্লাস নিচ্ছেন এটা খুবই ভালো উদ্যোগ।
এ ব্যাপারে সদর উপজেলার শিক্ষা অফিসার আমজাদ হোসেন বলেন, গত আগষ্ট মাসে আমি বিদ্যালয়টি সরেজমিন পরিদর্শন করে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষককে শিক্ষার মান উন্নয়নের নির্দেশনা দিই। পরে সেখানে ম্যানেজিং কমিটির মাধ্যমে ৭ তরুণকে স্বেচ্ছা শ্রমের মাধ্যমে ক্লাস নেয়ার জন্য নিয়োগ দিয়েছেন শুনেছি। শিক্ষার মান উন্নয়নে এটা অবশ্যাই প্রশংসনীয় উদ্যোগ।

Facebook Comments
Social Media Sharing
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.