Templates by BIGtheme NET
Home / সাহিত্য ও সাময়িকী

সাহিত্য ও সাময়িকী

কবির মানসকন্য

কবির মানসকন্য – রাসেল ইনাম শিমুল এ কোন মায়াবিনী, এ কোন নন্দিনী। এ দৃষ্টিগ্রাহ্য কল্পনাতীত এক লালিত্য কামিনী। এ যেন মেঘদূত কাব্যর যক্ষের প্রিয়া। এ যেন কবির কল্পনায় এলো বিরহ নিয়া। এ যেন বৈষ্ণব পদাবলীর সপ্নদষ্ট্রা রাধা। কৃষ্ণ বিহিন তাহারে ...

বাকি অংশ »

বাঁচাও মানব কুল

বাঁচাও মানব কুল -এম.সোহেল রানা               রহমানের রহিম তুমি,তুমি মেহেরবান তুমিই পার জীবন বাঁচাতে,আবার করতে অবসান, আমরা মানব ভীষণ পাপি,করেছি কত ভুল তোমার কুদরতি বৃষ্টি দিয়ে, বাঁচাও ভূমি পক্ষী-মানব কুল। বৃষ্টির লাগি নদ-নদী ভূমি ...

বাকি অংশ »

মেহেরপুরের বিদায়ী ও নবাগত জেলা প্রশাসক মহোদয়দেরকে বিদায়ী শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন

ড. আখতারুজ্জামান:পরিমল সিংহ জেলা প্রশাসক হিসেবে দু’বছর দু’মাস অত্যন্ত সফলভাবে মেহেরপুরে কর্মরত থেকে আজ ২০ মে,২০১৮ খ্রি. পূর্বাহ্নে মেহেরপুর থেকে বিদায় নিলেন। এমন সজ্জ্বন আর নির্মোহ মানুষের বিদায়ে মেহেরপুরের সর্বস্তরের জনগণকে শোকাবহ করে এই নিরেট আর ভাল মানুষটি বিদায় নিলেন। ...

বাকি অংশ »

বাড়িটি খুঁজে পাচ্ছি না

তারিক-উল ইসলাম: আর এক বাড়ি পেরোলেই আমাদের বাড়িটি; অথচ বাড়িটি খুঁজে পাচ্ছি না।দুপুর থেকে ছাদে ঝুলছে টাঙানো তারে মেলে দেয়া মায়ের শাড়িটি। ল্যাম্পপোস্টের আধো আলো আধো অন্ধকারে হলুদ আলোয় খেলা করছে ঝাঁক ধরে উড়ে আসা রাতপোকা; পাশেই গাছটিতে ডাকছে তক্ষক। ...

বাকি অংশ »

বসন্ত সুন্দরী

রাসেল ইনাম শিমুল হে বসন্ত সুন্দরী – কই তুমি ? পাইনাতো দেখা। চারিদিকে ফুলে ভরা – তবুও আমি কেনো একা বসন্তের পরশ পেয়ে, মন আমার খোলা। ফুল হয়ে আমায় কেনো দিচ্ছো নাকো দোলা। হে বসন্ত সুন্দরী- এতদিন ভালই ছিলাম আমি ...

বাকি অংশ »

এ বর্ষেও থেকো হর্ষে

তারিক-উল ইসলাম: কুয়াশা অন্তর্হিত হয়, ফোটে আনন্দ ফুল; কী নামে যে ডাকি তাকে গোলাপ, গাঁদা, ডালিয়া নাকি চন্দ্রমল্লিকা; শীতে আসে নতুন বছর। বর্ণিল পাপড়ি উদ্বাহু ডাকে, এসো; বলে- এ বর্ষেও থেকো হর্ষে। সূর্যমুখী চোখ, পিটুনিয়া চুলের বিনুনি, ডায়ান্থাস হাতের কাঁকন-বন্ধনী ...

বাকি অংশ »

তখন ঊনিশ

তারিক-উল ইসলাম: তখন ঊনিশ, উছলে পড়া দিন রোদেও জলের ঢেউ ঘাস-শিশিরে সূর্য আনে ভোর আড়ালে চোখ, কেউ দেখছে জানি জোৎস্না মাখা চোখে মহুয়া ফুল নাচে শিরিষ পাতায় কাঁপন তোলা ছবি কে বাঁচায় কে বাঁচে! মিছিলে মুখ দুরন্ত সেই হাত অফুরন্ত ...

বাকি অংশ »

জানালাটা খোলা থাক

তারিক-উল ইসলাম: আজ রাতে পর্দা ওড়াবে বাতাস,জানালাটা খোলা থাক, আসুক ধূলো, পাংক্তেয় বৃষ্টিজলের ছটা চোখ ছুঁয়ে যাক। বিড়ালের নি:শব্দ পায়ে হাঁটুক একজন সারা ঘর জুড়ে, কলাকৈবল্যে ফেলুক দেয়ালে বাঁধানো ছবি, যাক পুড়ে। অ্যাসট্রেটা হোক ফুলদানি, বলুক আসুক বাউরি ঝড় ভোলেনি ...

বাকি অংশ »

লিখেছে সে

তারিক-উল ইসলাম: নদীর জলে অবুঝ সবুজ পাতা, আকাশ যেন ত্রাতা ডাক দিয়ে মেঘ ওড়ে। আসছে শরত নেমে, শিউলি-কাশে অাসছো তুমি মন যে কেমন করে। বর্ষাজুড়ে ভরসা ছিল লেখা, রেখেছি সেই চিঠি হাতটা দিও-প্রিয়। সময় রেখো পাশে, গল্প বলা দীর্ঘ রাতের ...

বাকি অংশ »

চড়ুই ভোরে ডাকে মেঘের পাখি

তারিক-উল ইসলাম: হাতের অাঙুল কড়া নাড়ে- আছো ? হল্লা যেন, মহল্লাতে- বাঁচো । খিড়কি দুয়ার, কপাট খুলে রাখি; সাড়া পেলেই রঙ-তুলি নিই, আঁকি । তখনও চাঁদ দিচ্ছে জানান- আছি; গাছ পেরিয়ে, মাঠ ছাড়িয়ে- মাছি । সবুজ জলে ভৈরবী সুর ভাসে ...

বাকি অংশ »

প্রিয়, ও প্রিয় …………..

তারিক-উল ইসলাম: একটি লাল, আরেকটি হলুদ, সবুজ পাতার পাশে অারেকটি গাঢ় রক্তলাল। একটি প্রেমের, অারেকটি দ্রোহের, একটি নতমুখী ,অারেকটি উড়ন্ত সকাল। একটি হাসিমুখ-উন্মুখ, আরেকটি পস্ট , আধেক আরেকটি শুধুই বহাল। ফেলোনা কিছুই, থেকো, অনিমেষ যৌথযাত্রায় থেকো , কাল-সমকাল। গাঁথা সবুজে ...

বাকি অংশ »

বউদিন, হাসিটুকু থাক

তারিক-উল ইসলাম: হয় নাকি এমন! হোক বা না হোক, বলিই না বউদিন। বলিই না বেলীদিন। একদিনে অনেকদিন, অনেক দিন পরেও সেই একদিন, একটাই দিন। বিয়ের দিন। রোজ তো আর মুখে হয় না বলা, এই দিনে বেলীকে বলেই ফেলি- ভালোবাসি, সরাসরিই ...

বাকি অংশ »

ভেবোনা, ভালো থেকো

তারিক-উল ইসলাম: যদিও বিষণ্ন বিকেল তবু হাঁটু মুড়ে জলে-জানালায় রেখো চোখ। এঁকো হাসি। বিষাদ তো বিপন্ন সময়ের সঙ্গী । ছেড়ো নাকো তার হাত। যে অসুখ বৈরাগ্যের, তাকে কখনও বলোনা বিদায়। হননের দিনলিপি সখা যার, তাকে রেখো না বেঁধে। সেঁধে দিও ...

বাকি অংশ »

সাংবাদিক তোজাম্মেল আযম’র ‘‘মুক্তিযুদ্ধের কিশোর ইতিহাস’’ এখন বাজারে

মেহেরপুর নিউজ,২৭ মে: নেশা থেকে পেশার সংবাদকর্মি তোজাম্মেল আযম। যিনি সাংবাদিকতার পাশাপাশি ইতিহাসের শিকড়ের সন্ধানে হাতড়ে ফেরেন। তাই তিনি হয়ে গেছেন ইতিহাসের ফেরিওয়ালা। মেহেরপুরের ইতিহাস ঐতিহ্য এবং ডেটলাইন মুজিবনগরের পর এবার তার মুক্তিযুদ্ধের কিশোর ইতিহাস বই বের হয়েছে। বইটি তিনি ...

বাকি অংশ »

দীপক, কাঁদবো না

তারিক-উল ইসলাম: চলে গেলি! চলেই গেলি! বন্ধু, কেন গেলি? ফিরবি না আর, দেখা হবে না আর, কথা হবে না আর! হা-হা, হো-হো হাসবি না আর! তুই কেন চলে গেলি? কাঁপছে বুকের ভেতরটা। খবরটা শোনার পর কেঁদেছি হাউমাউ করে। কান্না যে ...

বাকি অংশ »
by webs bd .net
Copy Protected by Chetan's WP-Copyprotect.